ইমাম আলি (আ.)এর ফযিলত সংক্রান্ত হাদিস- ১

মুমিনদের আমলনামার শিরোনাম রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ عُنْوَانُ صَحِيفَةِ الْمُؤمِنِ حُبُّ عَلِيِّ بْنِ أَبِي طَالِبٍ. মুমিনের আমলনামার শিরোনাম হলো আলী ইবনে আবি তালিবের ভালোবাসা। (আল মানাকিব– ইবনে মাগাযেলী: ২৪৩/২৯০,কানযুল উম্মাল ১১:৬০১/৩২৯০০,তারীখে বাগদা

ইমাম আলি (আ.)এর ফযিলত সংক্রান্ত হাদিস- ১

ইমাম আলি, হজরত আলি. (আ.), খলিফা আলি, হাদিস, রেওয়ায়েত

এস, এ,এ

১. মুমিনদের আমলনামার শিরোনাম

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

عُنْوَانُ صَحِيفَةِ الْمُؤمِنِ حُبُّ عَلِيِّ بْنِ أَبِي طَالِبٍ.

মুমিনের আমলনামার শিরোনাম হলো আলী ইবনে আবি তালিবের ভালোবাসা। (আল মানাকিব– ইবনে মাগাযেলী: ২৪৩/২৯০,কানযুল উম্মাল ১১:৬০১/৩২৯০০,তারীখে বাগদাদ : ৪:৪১০)

২. আরবের নেতা

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أَنَا سَيِّدُ وُلْدِ آدَم، وَ عَلِيٌّ سَيِّدُ الْعَرَبِ.

আমি আদম সন্তানদের সরদার আর আলী আরবদের সরদার। (আল মু’ জামুল আওসাত-তাবারানী ২:২৭৯/১৪৯১,ইমাম আলী (আ.) (অনুবাদ)- ইবনে আসাকির ২:২৬২/৭৮৯,কানযুল উম্মাল-১১-১৮/৩৩০০৬)।

৩.  হিকমতের দরজা

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أَنَا دَارُ الْحِكْمَةِ، وَ عَلِيٌّ بَابُهَا.

আমি হিকমতের গৃহ আর আলী তার দরজা। (সুনানে তিরমিযী ৫:৬৩৭/৩৭২৩,হিল্লিয়াতুল আউলিয়া ১:৬৪,আল জামিউস্ সাগীর ১:৪১৫/২৭০৪)

৪. জ্ঞানের নগরীর দরওয়াযা

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أَنَا مَدِينَةُ الْعِلْمِ وَ عَليُّ بَابُهَا، فَمَنْ أَرَادَ الْمَدِينَةَ فَلْيَأتِ البَابَ.

আমি সমস্ত জ্ঞানের নগরী আর আলী তার তোরণ। কাজেই যে এই নগরীতে প্রবেশ করবে তাকে তোরণ বা দ্বারের মধ্য দিয়ে আসতে হবে। (আল মুস্তাদরাক-হাকেম ৩:১২৬-১২৭,জামেউল উসুল ৯:৪৭৩/৬৪৮৯,উসুদুল গবাহ্ ৪:২২,তারীখে বাগদাদ ১১:৪৯-৫০,আল বেদায়াহ্ ওয়ান নেহায়া ৭:৩৭২,আল জামেউস্ সাগীর ১:৪১৫/২৭০৫)

৫. উম্মতের মধ্যে সর্বাপেক্ষা জ্ঞানী

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أَعْلَمُ اُمَّتِي مِنْ بَعْدِي عَلِیُّ بْنُ أَبِي طَالِبٍ.

আমার পরে আলী হলো আমার উম্মতের মধ্যে সর্বাপেক্ষা জ্ঞানী। (কানযুল উম্মাল ১১:৬১৪/৩২৯৭৭,আল ফেরদৌস ১:৩৭০/১৪৯১)

৬. মহানবী (সা.)-এর ভাই

রাসূলুল্লাহ (সা.) ইমাম আলীকে বলেনঃ

أَنْتَ أَخِي فِي الدُّنْيَا وَ الْاَخِرَة.

তুমি দুনিয়া এবং পরকালে আমার ভাই। (সুনানে তিরমিযী ৫:৬৩৬/৩৭২০,আর রিয়াদুন নাদরাহ ৩:১২৪)

৭. রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর মনোনীত

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أَمَّا أَنْتَ يَا عَلِيّ، أَنْتَ صَفِيِّي وَ أمِينِي.

আর তুমি হে আলী! তুমি আমার মনোনীত এবং আমার আমানতদার। (খাসায়েসে নাসায়ী : ১৯,মাজমাউয যাওয়ায়েদ ৯:১৫৬)

৮. মহানবী (সা.)-এর স্থলাভিষিক্ত

হুজুর (সা.) হযরত আলীর প্রতি ইঙ্গিত করে বলেনঃ

إِنَّ هَذَا أَخِي وَ وَصِيِّي وَ خَلِيفَتِي فِيكُمْ، فَاسْمَعُوا لَهُ وَ أَطِيعُوه.

জেনে রেখো যে,সে তোমাদের মাঝে আমার ভাই,উত্তরসূরি এবং স্থলাভিষিক্ত। সুতরাং তার কথা মনোযোগ দিয়ে শুনবে এবং তার আনুগত্য করবে। (তারীখে তাবারী ২:২১৭,আল কামিল ফিত্ তারীখ ২:৬৪,মাআলিমুত্ তানযীল ৪:২৭৮)

৯. মুমিনদের অভিভাবক

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

إنَّ عَلِيّاً وَلِيُّكُمْ بَعْدِي.

নিশ্চয় আলী আমার পরে তোমাদের অভিভাবক।(কানযুল উম্মাল ১১:৬১২/৩২৯৬৩,আল ফেরদৌস ৫:২৯২/৮৫২৮)

১০. বিচারের সিংহাসনে

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أَقْضَي اُمَّتِي عَليُّ.

আলী আমার উম্মতের মাঝে সর্বাপেক্ষা বিচক্ষণ বিচারক। (আর রিয়াদুন নাদরাহ ৩:১৬৭,মানাকিবে খারেযমী ৩০,যাখায়িরুল উকবা ৮৩)

১১.  উম্মতের জন্য হুজ্জাত বা দলিল

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أَنَا وَ عَلِيٌّ حُجَّةٌ عَلَي أُمَّتِي يَوْمَ الْقِيَامَةِ.

কেয়ামতের দিন আমি এবং আলী আমার অনুসারীদের জন্য হুজ্জাত (দলিল) এবং পথপ্রদর্শনকারী। (তারীখে বাগদাদ ২:৮৮)

১২. মহানবী (সা.)-এর একই বংশধারা

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أَنَا وَ عَلِيٌّ مِنْ شَجَرَةٍ وَاحِدَةٍ، وَ النَّاسُ مِنْ أشْجَارٍ شَتَّي.

আমি আর আলী একই বৃক্ষ থেকে,আর অন্যেরা (মানুষ) বিভিন্ন বৃক্ষ থেকে। (আল মানাকিব– ইবনে মাগাযেলী :৪০০/৫৩,কানযুল উম্মাল ১১:৬০৮/ ৩২৯৪৩,আল ফেরদৌস ১: ৪৪/১০৯,মাজমাউয যাওয়ায়েদ ৯:১০০)

১৩. উম্মতের হেদায়াতকারী

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أنَا الْمُنْذِرُ وَ عَلِيٌّ الْهَادِي، بِكَ يَا عَلِيُّ يَهْتَدِي الْمُهْتَدُونَ.

আমি হলাম সাবধানকারী। আর হে আলী! তোমার মাধ্যমে পথ অন্বেষণকারীরা পথ খুঁজে পাবে। (তাফসীরে তাবারী ১৩:৭২,ইমাম আলী (আ.) (অনুবাদ)- ইবনে আসাকির ২:৪১৭/৯২৩)

১৪. জাতির পথ-প্রদর্শক

রাসূলুল্লাহ (সা.) ইমাম আলীকে বলেনঃ

أنْتَ تُبَيِّنُ لِأُمَّتِي مَا اخْتَلَفُوا فِيهِ بَعْدِي.

আমার পরে আমার উম্মত যে বিষয়ে মতবিরোধ করবে তুমি তার সমাধান দান করবে। (আল মুস্তাদরাক-হাকেম ৩:১২২,কানযুল উম্মাল ১১:৬১৫/৩২৯৮৩,আল ফেরদৌস ৫:৩৩২/৮৩৪৯,হিল্লিয়াতুল আউলিয়া ১:৬৪)

১৫. মহানবী (সা.)-এর থেকে

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أنْتَ مِنِّي وَ أَنَا مِنْكَ.

তুমি আমা থেকে আর আমি তোমা থেকে। (সহীহ বুখারী ৪:২২,৫:৮৭,সুনানে তিরমিযী ৫:৬৩৫/৩৭১৬,মাসাবিহুস সুন্নাহ ৪:১৭২/৪৭৬৫ ও ১৮৬/১০৪৮,তারীখে বাগদাদ ৪:১৪০)

১৬. মুমিনদের কর্তৃত্বের অধিকারী

রাসূলুল্লাহ (সা.) ইমাম আলীকে বলেনঃ

أنْتَ وَلِيُّ كُلِّ مُؤمِنٍ وَ مُؤمِنَةٍ بَعْدِي.

আমার পরে তুমি প্রত্যেক মুমিন নর ও নারীর ওপর কর্তৃত্বের অধিকারী। (আল মুস্তাদরাক-হাকেম ৩:১৩৪,আল মুজামুল কাবীর-তাবারানী ১২:৭৮/১২৫৯৩)

১৭. আদর্শের পথে শহীদ

রাসূলুল্লাহ (সা.) ইমাম আলীকে বলেনঃ

أنْتَ تَعِيْشُ عَلَي مِلَّتِي، وَ تُقْتَلُ عَلَي سُنَّتِي.

তুমি আমার পন্থায় জীবন যাপন করবে,আর আমার আদর্শের পথেই শাহাদাত বরণ করবে। (কানযুল উম্মাল ১১:৬১৭/৩২৯৯৭,আল মুস্তাদরাক-হাকেম :৩/১৪২)

১৮. রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর প্রাণ

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

إِنَّ عَلِيّاً مِنِّي، وَ أََنَا مِنْهُ، وَ هُوَ وَلِيُّ كُلِّ مُؤمِنٍ بَعْدِي.

নিশ্চয় আলী আমা থেকে আর আমি আলী থেকে। আর সে আমার পরে সকল মুমিনের নেতা। (খাসায়েসে নেসায়ী :২৩,মুসনাদে আহমাদ ৪:৪৩৮,আল মু’ জামুল কাবীর-তাবারানী ১৮: ১২৮/২৬৫,হিল্লীয়াতুল আউলিয়া ৬:২৯৬)

১৯. মহানবী (সা.)-এর হারুন

রাসূলুল্লাহ (সা.) ইমাম আলী (আ.) কে বলেনঃ

أنْتَ مِنِّي بِمَنْزِلَةِ هَارُونَ مِنْ مُوسَي إِلَّا أَنَّهُ لَا نَبِيَّ بَعْدي.

আমার নিকট তুমি মুসার কাছে হারুনের ন্যায়। শুধু আমার পরে কোনো নবী নেই। (সুনানে তিরমিযী ৫:৬৪১/৩৭৩০,মাসাবিহুস্ সুন্নাহ ৪:১৭০/৪৭৬২,সহীহ মুসলিম ৪:৪৪/৩০)

২০. রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর সাথে

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أَبْشِرْ يَا عَلِيُّ، حَيَاتُكَ مَعِي وَ مَوتُك مَعِي.

হে আলী! সুসংবাদ তোমার ওপর। তোমার জীবন আমার সাথে আর তোমার মরণও আমার সাথে। (ইমাম আলী (আ.)-ইবনে আসাকির ২:৪৩৫,৯৪৭,মাজমাউয যাওয়াযেদ ৯:১১২,কানযুল উম্মাল ১৩: ১৪৪/৩৬৪৫৩)

২১. সর্বপ্রথম নামাযী

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

أََوَّلُ مَنْ صَلَّي مَعِي عَلِيٌّ.

সর্বপ্রথম আমার সাথে যে নামায পড়েছে সে হলো আলী। (কানযুল উম্মাল ১১:৬১৬/৩২৯৯২,আল ফেরদৌস ১:২৭/৩৯)

২২. শ্রেষ্ঠতম পুরুষ

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেনঃ

خَيْرُ رِجَالِكُمْ عَلِيُّ بْنُ أَبِي طَالِبٍ.

আলী ইবনে আবি তালিব তোমাদের মধ্যে শ্রেষ্ঠতম পুরুষ। (তারীখে বাগদাদ ৪:৩৯২,মুন্তাখাবু কানযুল উম্মাল ৫:৯৩)