“আরাফা” ৯ই জিলহজের দিন ও রাতের আমলসমূহ

আরাফার দিন হচ্ছে আরবি বছরের জিলহজ মাসের ৯ তারিখ। যদিও উক্ত দিনটির নামের পূর্বে ঈদ শব্দটি আসেনি কিন্তু তারপরেও উক্ত দিনটি হচ্ছে অন্যান্য ঈদের ন্যায় গুরুত্বপূর্ণ। আরাফার দিনকে কেন্দ্র করে রেওয়ায়েতে বেশ কিছু আমল বর্ণিত হয়েছে।

আরাফা ৯ই জিলহজের দিন ও রাতের আমলসমূহ

এস, এ, এ

 

আরাফার রাতের আমল

৯ই জিলহজের রাতটি ফযিলতপূর্ণ একটি রাত। উক্ত রাতে দোয়া ও তওবাকে কবুল করা হয়। কেউ যদি উক্ত রাতটিকে ইবাদতের মাধ্যমে অতিবাহিত করে তাহলে তাকে ১৭০ বছরের সমপরিমাণ সওয়াব দান করা হবে। হাদীসে উক্ত রাতে কয়েকটি বিশেষ আমল বর্ণিত হয়েছে যেমন:

কেউ যদি আরাফাতের রাতে বা শুক্রবার রাতে উক্ত দোয়াটি পাঠ করে তাহলে আল্লাহ তায়ালা তার সকল গুনাহকে ক্ষমা করে দিবেন। দোয়াটি নিন্মরূপ:

اللَّهُمَّ يَا شَاهِدَ كُلِّ نَجْوَى وَ مَوْضِعَ كُلِّ شَكْوَى وَ عَالِمَ كُلِّ خَفِيَّةٍ وَ مُنْتَهَى كُلِّ حَاجَةٍ يَا مُبْتَدِئا بِالنِّعَمِ عَلَى الْعِبَادِ يَا كَرِيمَ الْعَفْوِ يَا حَسَنَ التَّجَاوُزِ يَا جَوَادُ يَا مَنْ لا يُوَارِي مِنْهُ لَيْلٌ دَاجٍ وَ لا بَحْرٌ عَجَّاجٌ وَ لا سَمَاءٌ ذَاتُ أَبْرَاجٍ وَ لا ظُلَمٌ ذَاتُ ارْتِتَاجٍ [ارْتِيَاجٍ ] يَا مَنِ الظُّلْمَةُ عِنْدَهُ ضِيَاءٌ أَسْأَلُكَ بِنُورِ وَجْهِكَ الْكَرِيمِ الَّذِي تَجَلَّيْتَ بِهِ لِلْجَبَلِ فَجَعَلْتَهُ دَكّاً وَ خَرَّ مُوسَى صَعِقاً وَ بِاسْمِكَ الَّذِي رَفَعْتَ بِهِ السَّمَاوَاتِ بِلا عَمَدٍ وَ سَطَحْتَ بِهِ الْأَرْضَ عَلَى وَجْهِ مَاءٍ جَمَدٍ وَ بِاسْمِكَ الْمَخْزُونِ الْمَكْنُونِ الْمَكْتُوبِ الطَّاهِرِ الَّذِي إِذَا دُعِيتَ ، بِهِ أَجَبْتَ وَ إِذَا سُئِلْتَ بِهِ أَعْطَيْتَ وَ بِاسْمِكَ السُّبُّوحِ الْقُدُّوسِ الْبُرْهَانِ الَّذِي هُوَ نُورٌ عَلَى كُلِّ نُورٍ وَ نُورٌ مِنْ نُورٍ يُضِي ءُ مِنْهُ كُلُّ نُورٍ إِذَا بَلَغَ الْأَرْضَ انْشَقَّتْ وَ إِذَا بَلَغَ السَّمَاوَاتِ فُتِحَتْ وَ إِذَا بَلَغَ الْعَرْشَ اهْتَزَّ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي تَرْتَعِدُ مِنْهُ فَرَائِصُ مَلائِكَتِكَ وَ أَسْأَلُكَ بِحَقِّ جَبْرَئِيلَ وَ مِيكَائِيلَ وَ إِسْرَافِيلَ وَ بِحَقِّ مُحَمَّدٍ الْمُصْطَفَى صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَ آلِهِ وَ عَلَى جَمِيعِ الْأَنْبِيَاءِ وَ جَمِيعِ الْمَلائِكَةِ وَ بِالاسْمِ الَّذِي مَشَى بِهِ الْخِضْرُ عَلَى قُلَلِ [طَلَلِ ] الْمَاءِ كَمَا مَشَى بِهِ عَلَى جَدَدِ الْأَرْضِ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي فَلَقْتَ بِهِ الْبَحْرَ لِمُوسَى وَ أَغْرَقْتَ فِرْعَوْنَ وَ قَوْمَهُ وَ أَنْجَيْتَ بِهِ مُوسَى بْنَ عِمْرَانَ وَ مَنْ مَعَهُ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي دَعَاكَ بِهِ مُوسَى بْنُ عِمْرَانَ مِنْ جَانِبِ الطُّورِ الْأَيْمَنِ ، فَاسْتَجَبْتَ لَهُ وَ أَلْقَيْتَ عَلَيْهِ مَحَبَّةً مِنْكَ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي بِهِ أَحْيَا عِيسَى بْنُ مَرْيَمَ الْمَوْتَى وَ تَكَلَّمَ فِي الْمَهْدِ صَبِيّاً وَ أَبْرَأَ الْأَكْمَهَ وَ الْأَبْرَصَ بِإِذْنِكَ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي دَعَاكَ بِهِ حَمَلَةُ عَرْشِكَ وَ جَبْرَئِيلُ وَ مِيكَائِيلُ وَ إِسْرَافِيلُ وَ حَبِيبُكَ مُحَمَّدٌ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَ آلِهِ وَ مَلائِكَتُكَ الْمُقَرَّبُونَ وَ أَنْبِيَاؤُكَ الْمُرْسَلُونَ وَ عِبَادُكَ الصَّالِحُونَ مِنْ أَهْلِ السَّمَاوَاتِ وَ الْأَرَضِينَ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي دَعَاكَ بِهِ ذُو النُّونِ إِذْ ذَهَبَ مُغَاضِباً فَظَنَّ أَنْ لَنْ نَقْدِرَ [تَقْدِرَ] عَلَيْهِ فَنَادَى فِي الظُّلُمَاتِ أَنْ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ سُبْحَانَكَ إِنِّي كُنْتُ مِنَ الظَّالِمِينَ فَاسْتَجَبْتَ لَهُ وَ نَجَّيْتَهُ مِنَ الْغَمِّ وَ كَذَلِكَ تُنْجِي [نُنْجِي ] الْمُؤْمِنِينَ وَ بِاسْمِكَ الْعَظِيمِ الَّذِي دَعَاكَ بِهِ دَاوُدُ وَ خَرَّ لَكَ سَاجِدا فَغَفَرْتَ لَهُ ذَنْبَهُ، وَ بِاسْمِكَ الَّذِي دَعَتْكَ بِهِ آسِيَةُ امْرَأَةُ فِرْعَوْنَ إِذْ قَالَتْ رَبِّ ابْنِ لِي عِنْدَكَ بَيْتا فِي الْجَنَّةِ وَ نَجِّنِي مِنْ فِرْعَوْنَ وَ عَمَلِهِ وَ نَجِّنِي مِنَ الْقَوْمِ الظَّالِمِينَ فَاسْتَجَبْتَ لَهَا دُعَاءَهَا وَ بِاسْمِكَ الَّذِي دَعَاكَ بِهِ أَيُّوبُ إِذْ حَلَّ بِهِ الْبَلاءُ فَعَافَيْتَهُ وَ آتَيْتَهُ أَهْلَهُ وَ مِثْلَهُمْ مَعَهُمْ رَحْمَةً مِنْ عِنْدِكَ وَ ذِكْرَى لِلْعَابِدِينَ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي دَعَاكَ بِهِ يَعْقُوبُ فَرَدَدْتَ عَلَيْهِ بَصَرَهُ وَ قُرَّةَ عَيْنِهِ يُوسُفَ وَ جَمَعْتَ شَمْلَهُ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي دَعَاكَ بِهِ سُلَيْمَانُ فَوَهَبْتَ لَهُ مُلْكاً لا يَنْبَغِي لِأَحَدٍ مِنْ بَعْدِهِ إِنَّكَ أَنْتَ الْوَهَّابُ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي سَخَّرْتَ بِهِ الْبُرَاقَ لِمُحَمَّدٍ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَ آلِهِ وَ سَلَّمَ إِذْ قَالَ تَعَالَى سُبْحَانَ الَّذِي أَسْرَى بِعَبْدِهِ لَيْلا مِنَ الْمَسْجِدِ الْحَرَامِ إِلَى الْمَسْجِدِ الْأَقْصَى وَ قَوْلُهُ: سُبْحَانَ الَّذِي سَخَّرَ لَنَا هَذَا وَ مَا كُنَّا لَهُ مُقْرِنِينَ وَ إِنَّا إِلَى رَبِّنَا لَمُنْقَلِبُونَ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي تَنَزَّلَ بِهِ جَبْرَئِيلُ عَلَى مُحَمَّدٍ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَ آلِهِ وَ بِاسْمِكَ الَّذِي دَعَاكَ بِهِ آدَمُ فَغَفَرْتَ لَهُ ذَنْبَهُ وَ أَسْكَنْتَهُ جَنَّتَكَ وَ أَسْأَلُكَ بِحَقِّ الْقُرْآنِ الْعَظِيمِ وَ بِحَقِّ مُحَمَّدٍ خَاتَمِ النَّبِيِّينَ وَ بِحَقِّ إِبْرَاهِيمَ وَ بِحَقِّ فَصْلِكَ يَوْمَ الْقَضَاءِ وَ بِحَقِّ الْمَوَازِينِ إِذَا نُصِبَتْ وَ الصُّحُفِ إِذَا نُشِرَتْ وَ بِحَقِّ الْقَلَمِ وَ مَا جَرَى وَ اللَّوْحِ وَ مَا أَحْصَى وَ بِحَقِّ الاسْمِ الَّذِي كَتَبْتَهُ عَلَى سُرَادِقِ الْعَرْشِ قَبْلَ خَلْقِكَ الْخَلْقَ وَ الدُّنْيَا وَ الشَّمْسَ وَ الْقَمَرَ بِأَلْفَيْ عَامٍ وَ أَشْهَدُ أَنْ لا إِلَهَ إِلا اللَّهُ وَحْدَهُ لا شَرِيكَ لَهُ وَ أَنَّ مُحَمَّدا عَبْدُهُ وَ رَسُولُهُ، وَ أَسْأَلُكَ بِاسْمِكَ الْمَخْزُونِ فِي خَزَائِنِكَ الَّذِي اسْتَأْثَرْتَ بِهِ فِي عِلْمِ الْغَيْبِ عِنْدَكَ لَمْ يَظْهَرْ عَلَيْهِ أَحَدٌ مِنْ خَلْقِكَ لا مَلَكٌ مُقَرَّبٌ وَ لا نَبِيٌّ مُرْسَلٌ وَ لا عَبْدٌ مُصْطَفًى وَ أَسْأَلُكَ بِاسْمِكَ الَّذِي شَقَقْتَ بِهِ الْبِحَارَ وَ قَامَتْ بِهِ الْجِبَالُ وَ اخْتَلَفَ بِهِ اللَّيْلُ وَ النَّهَارُ وَ بِحَقِّ السَّبْعِ الْمَثَانِي وَ الْقُرْآنِ الْعَظِيمِ وَ بِحَقِّ الْكِرَامِ الْكَاتِبِينَ وَ بِحَقِّ طه وَ يس وَ كهيعص وَ حمعسق وَ بِحَقِّ تَوْرَاةِ مُوسَى وَ إِنْجِيلِ عِيسَى وَ زَبُورِ دَاوُدَ وَ فُرْقَانِ مُحَمَّدٍ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَ آلِهِ وَ عَلَى جَمِيعِ الرُّسُلِ وَ بِآهِيّا شَرَاهِيّا اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ بِحَقِّ تِلْكَ الْمُنَاجَاةِ الَّتِي كَانَتْ بَيْنَكَ وَ بَيْنَ مُوسَى بْنِ عِمْرَانَ فَوْقَ جَبَلِ طُورِ سَيْنَاءَ، وَ أَسْأَلُكَ بِاسْمِكَ الَّذِي عَلَّمْتَهُ مَلَكَ الْمَوْتِ لِقَبْضِ الْأَرْوَاحِ وَ أَسْأَلُكَ بِاسْمِكَ الَّذِي كُتِبَ عَلَى وَرَقِ الزَّيْتُونِ فَخَضَعَتِ النِّيرَانُ لِتِلْكَ الْوَرَقَةِ فَقُلْتَ يَا نَارُ كُونِي بَرْداً وَ سَلاماً وَ أَسْأَلُكَ بِاسْمِكَ الَّذِي كَتَبْتَهُ عَلَى سُرَادِقِ الْمَجْدِ وَ الْكَرَامَةِ يَا مَنْ لا يُحْفِيهِ سَائِلٌ وَ لا يَنْقُصُهُ نَائِلٌ يَا مَنْ بِهِ يُسْتَغَاثُ وَ إِلَيْهِ يُلْجَأُ أَسْأَلُكَ بِمَعَاقِدِ الْعِزِّ مِنْ عَرْشِكَ وَ مُنْتَهَى الرَّحْمَةِ مِنْ كِتَابِكَ وَ بِاسْمِكَ الْأَعْظَمِ وَ جَدِّكَ الْأَعْلَى وَ كَلِمَاتِكَ التَّامَّاتِ الْعُلَى اللَّهُمَّ رَبَّ الرِّيَاحِ وَ مَا ذَرَتْ وَ السَّمَاءِ وَ مَا أَظَلَّتْ وَ الْأَرْضِ وَ مَا أَقَلَّتْ وَ الشَّيَاطِينِ وَ مَا أَضَلَّتْ وَ الْبِحَارِ وَ مَا جَرَتْ وَ بِحَقِّ كُلِّ حَقٍّ هُوَ عَلَيْكَ حَقٌّ، وَ بِحَقِّ الْمَلائِكَةِ الْمُقَرَّبِينَ وَ الرَّوْحَانِيِّينَ وَ الْكَرُوبِيِّينَ وَ الْمُسَبِّحِينَ لَكَ بِاللَّيْلِ وَ النَّهَارِ لا يَفْتُرُونَ وَ بِحَقِّ إِبْرَاهِيمَ خَلِيلِكَ وَ بِحَقِّ كُلِّ وَلِيٍّ يُنَادِيكَ بَيْنَ الصَّفَا وَ الْمَرْوَةِ وَ تَسْتَجِيبُ لَهُ دُعَاءَهُ يَا مُجِيبُ أَسْأَلُكَ بِحَقِّ هَذِهِ الْأَسْمَاءِ وَ بِهَذِهِ الدَّعَوَاتِ أَنْ تَغْفِرَ لَنَا مَا قَدَّمْنَا وَ مَا أَخَّرْنَا وَ مَا أَسْرَرْنَا وَ مَا أَعْلَنَّا وَ مَا أَبْدَيْنَا وَ مَا أَخْفَيْنَا وَ مَا أَنْتَ أَعْلَمُ بِهِ مِنَّا إِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَيْ ءٍ قَدِيرٌ بِرَحْمَتِكَ يَا أَرْحَمَ الرَّاحِمِينَ يَا حَافِظَ كُلِّ غَرِيبٍ يَا مُونِسَ كُلِّ وَحِيدٍ يَا قُوَّةَ كُلِّ ضَعِيفٍ يَا نَاصِرَ كُلِّ مَظْلُومٍ يَا رَازِقَ كُلِّ مَحْرُومٍ يَا مُونِسَ كُلِّ مُسْتَوْحِشٍ يَا صَاحِبَ كُلِّ مُسَافِرٍ يَا عِمَادَ كُلِّ حَاضِرٍ يَا غَافِرَ كُلِّ ذَنْبٍ وَ خَطِيئَةٍ يَا غِيَاثَ الْمُسْتَغِيثِينَ يَا صَرِيخَ الْمُسْتَصْرِخِينَ يَا كَاشِفَ كَرْبِ الْمَكْرُوبِينَ، يَا فَارِجَ هَمِّ الْمَهْمُومِينَ يَا بَدِيعَ السَّمَاوَاتِ وَ الْأَرَضِينَ يَا مُنْتَهَى غَايَةِ الطَّالِبِينَ يَا مُجِيبَ دَعْوَةِ الْمُضْطَرِّينَ يَا أَرْحَمَ الرَّاحِمِينَ يَا رَبَّ الْعَالَمِينَ يَا دَيَّانَ يَوْمِ الدِّينِ يَا أَجْوَدَ الْأَجْوَدِينَ يَا أَكْرَمَ الْأَكْرَمِينَ يَا أَسْمَعَ السَّامِعِينَ يَا أَبْصَرَ النَّاظِرِينَ يَا أَقْدَرَ الْقَادِرِينَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تُغَيِّرُ النِّعَمَ وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تُورِثُ النَّدَمَ وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تُورِثُ السَّقَمَ وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تَهْتِكُ الْعِصَمَ وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تَرُدُّ الدُّعَاءَ وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تَحْبِسُ قَطْرَ السَّمَاءِ وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تُعَجِّلُ الْفَنَاءَ وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تَجْلِبُ الشَّقَاءَ ، وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تُظْلِمُ الْهَوَاءَ وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي تَكْشِفُ الْغِطَاءَ وَ اغْفِرْ لِيَ الذُّنُوبَ الَّتِي لا يَغْفِرُهَا غَيْرُكَ يَا اللَّهُ وَ احْمِلْ عَنِّي كُلَّ تَبِعَةٍ لِأَحَدٍ مِنْ خَلْقِكَ وَ اجْعَلْ لِي مِنْ أَمْرِي فَرَجاً وَ مَخْرَجاً وَ يُسْراً وَ أَنْزِلْ يَقِينَكَ فِي صَدْرِي وَ رَجَاءَكَ فِي قَلْبِي حَتَّى لا أَرْجُوَ غَيْرَكَ اللَّهُمَّ احْفَظْنِي وَ عَافِنِي فِي مَقَامِي وَ اصْحَبْنِي فِي لَيْلِي وَ نَهَارِي وَ مِنْ بَيْنِ يَدَيَّ وَ مِنْ خَلْفِي وَ عَنْ يَمِينِي وَ عَنْ شِمَالِي وَ مِنْ فَوْقِي وَ مِنْ تَحْتِي وَ يَسِّرْ لِيَ السَّبِيلَ وَ أَحْسِنْ لِيَ التَّيْسِيرَ وَ لا تَخْذُلْنِي فِي الْعَسِيرِ وَ اهْدِنِي يَا خَيْرَ دَلِيلٍ، وَ لا تَكِلْنِي إِلَى نَفْسِي فِي الْأُمُورِ وَ لَقِّنِي كُلَّ سُرُورٍ وَ اقْلِبْنِي إِلَى أَهْلِي بِالْفَلاحِ وَ النَّجَاحِ مَحْبُوراً فِي الْعَاجِلِ وَ الْآجِلِ إِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَيْ ءٍ قَدِيرٌ وَ ارْزُقْنِي مِنْ فَضْلِكَ وَ أَوْسِعْ عَلَيَّ مِنْ طَيِّبَاتِ رِزْقِكَ وَ اسْتَعْمِلْنِي فِي طَاعَتِكَ وَ أَجِرْنِي مِنْ عَذَابِكَ وَ نَارِكَ وَ اقْلِبْنِي إِذَا تَوَفَّيْتَنِي إِلَى جَنَّتِكَ بِرَحْمَتِكَ اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ زَوَالِ نِعْمَتِكَ وَ مِنْ تَحْوِيلِ عَافِيَتِكَ وَ مِنْ حُلُولِ نَقِمَتِكَ وَ مِنْ نُزُولِ عَذَابِكَ وَ أَعُوذُ بِكَ مِنْ جَهْدِ الْبَلاءِ وَ دَرَكِ الشَّقَاءِ وَ مِنْ سُوءِ الْقَضَاءِ وَ شَمَاتَةِ الْأَعْدَاءِ وَ مِنْ شَرِّ مَا يَنْزِلُ مِنَ السَّمَاءِ وَ مِنْ شَرِّ مَا فِي الْكِتَابِ الْمُنْزَلِ اللَّهُمَّ لا تَجْعَلْنِي مِنَ الْأَشْرَارِ وَ لا مِنْ أَصْحَابِ النَّارِ، وَ لا تَحْرِمْنِي صُحْبَةَ الْأَخْيَارِ وَ أَحْيِنِي حَيَاةً طَيِّبَةً وَ تَوَفَّنِي وَفَاةً طَيِّبَةً تُلْحِقُنِي بِالْأَبْرَارِ وَ ارْزُقْنِي مُرَافَقَةَ الْأَنْبِيَاءِ فِي مَقْعَدِ صِدْقٍ عِنْدَ مَلِيكٍ مُقْتَدِرٍ اللَّهُمَّ لَكَ الْحَمْدُ عَلَى حُسْنِ بَلائِكَ وَ صُنْعِكَ وَ لَكَ الْحَمْدُ عَلَى الْإِسْلامِ وَ اتِّبَاعِ السُّنَّةِ يَا رَبِّ كَمَا هَدَيْتَهُمْ لِدِينِكَ وَ عَلَّمْتَهُمْ كِتَابَكَ فَاهْدِنَا وَ عَلِّمْنَا وَ لَكَ الْحَمْدُ عَلَى حُسْنِ بَلائِكَ وَ صُنْعِكَ عِنْدِي خَاصَّةً كَمَا خَلَقْتَنِي فَأَحْسَنْتَ خَلْقِي وَ عَلَّمْتَنِي فَأَحْسَنْتَ تَعْلِيمِي وَ هَدَيْتَنِي فَأَحْسَنْتَ هِدَايَتِي فَلَكَ الْحَمْدُ عَلَى إِنْعَامِكَ عَلَيَّ قَدِيماً وَ حَدِيثاً فَكَمْ مِنْ كَرْبٍ يَا سَيِّدِي قَدْ فَرَّجْتَهُ وَ كَمْ مِنْ غَمٍّ يَا سَيِّدِي قَدْ نَفَّسْتَهُ وَ كَمْ مِنْ هَمٍّ يَا سَيِّدِي قَدْ كَشَفْتَهُ وَ كَمْ مِنْ بَلاءٍ يَا سَيِّدِي قَدْ صَرَفْتَهُ وَ كَمْ مِنْ عَيْبٍ يَا سَيِّدِي قَدْ سَتَرْتَهُ ، فَلَكَ الْحَمْدُ عَلَى كُلِّ حَالٍ فِي كُلِّ مَثْوًى وَ زَمَانٍ وَ مُنْقَلَبٍ وَ مُقَامٍ [مَقَامٍ ] وَ عَلَى هَذِهِ الْحَالِ وَ كُلِّ حَالٍ اللَّهُمَّ اجْعَلْنِي مِنْ أَفْضَلِ عِبَادِكَ نَصِيباً فِي هَذَا الْيَوْمِ مِنْ خَيْرٍ تَقْسِمُهُ أَوْ ضُرٍّ تَكْشِفُهُ أَوْ سُوءٍ تَصْرِفُهُ أَوْ بَلاءٍ تَدْفَعُهُ أَوْ خَيْرٍ تَسُوقُهُ أَوْ رَحْمَةٍ تَنْشُرُهَا أَوْ عَافِيَةٍ تُلْبِسُهَا فَإِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَيْ ءٍ قَدِيرٌ وَ بِيَدِكَ خَزَائِنُ السَّمَاوَاتِ وَ الْأَرْضِ وَ أَنْتَ الْوَاحِدُ الْكَرِيمُ الْمُعْطِي الَّذِي لا يُرَدُّ سَائِلُهُ وَ لا يُخَيَّبُ آمِلُهُ وَ لا يَنْقُصُ نَائِلُهُ وَ لا يَنْفَدُ مَا عِنْدَهُ بَلْ يَزْدَادُ كَثْرَةً وَ طِيباً وَ عَطَاءً وَ جُوداً وَ ارْزُقْنِي مِنْ خَزَائِنِكَ الَّتِي لا تَفْنَى وَ مِنْ رَحْمَتِكَ الْوَاسِعَةِ إِنَّ عَطَاءَكَ لَمْ يَكُنْ مَحْظُورا وَ أَنْتَ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ بِرَحْمَتِكَ يَا أَرْحَمَ الرَّاحِمِينَ .

 

আরাফার দিনের আমল সমূহ

২. রাসুল (সা.) হতে বর্ণিত তসবিহে আশারা পাঠ করা। সৈয়দ ইবনে তাউস (রহ.) ইকবালুল আমাল নামক গ্রন্থে আরাফার দিনে রাসুল (সা.) হতে বর্ণিত বিশেষ তসবিহটি আরাফার দিনের আমলে উল্লেখ করেছেন। তসবিহটি এক হাজারবার পাঠ করা।

৩.এ দোয়াটি পাঠ করা: “اللّهُمَّ مَنْ تَعَبَّاَ وَﺗﻬﻴﺍ যা আরাফার দিন শুক্রবার দিবা রাত্রিতে এবং পূর্বে শুক্রবার রাতের আমলে তা বর্ণিত হয়েছে।

৪. ইমাম হুসাইন (আ.)এর যিয়ারত পাঠ করা এবং কারবালাতে ঈদের দিন পর্যন্ত অবস্থান করলে সে ঐ বছরে নিরাপদে থাকবে।

৯ই জিলহজ্ব তথা আরাফার হচ্ছে মর্যাদাপূর্ণ ও মহিমান্বিত ঈদের দিন। উক্ত দিনটি যদিও ঈদের দিন হিসেবে পরিচিতি পাইনি। তারপরেও আল্লাহ এ দিনে তাঁর বান্দাদের তাঁর ইবাদতের জন্য আহবান জানিয়েছেন। আজকের দিনে তিনি ক্ষমা দ্বারকে উন্মুক্ত করে দেন এবং আজকে শয়তানকে অপদস্থ ও অপমানিত করেন। রেওয়ায়েতে বর্ণিত হয়েছে যে, ইমাম জয়নুল আবেদীন (আ.) আরাফার দিনে একজন ভিক্ষুক ভিক্ষা চাচ্ছিল। তিনি সে ভিক্ষুককে বললেন: হায় তুমি আজকের ন্যায় মহিমান্বত দিবসে আল্লাহ ছাড়া অন্যর কাছে ভিক্ষা করছো অথচ আজকের দিনে তো মায়ের গর্ভের সন্তানেরাও আল্লাহর অনুগ্রহ ও কৃপায় সৌভাগ্যবান হয়। এ দিনে কিছু আমল বর্ণিত হয়েছে যেমন:

১. গোসল করা।

২. ইমাম হুসাইন (আ.)এর যিয়ারত করা। উক্ত যিয়ারতের বিনিময়ে তাকে হাজার হজ্ব, ওমরা ও জিহাদের চেয়েও বেশী সওয়াব দান করা হয়। এ যিয়ারতের ফযিলত সম্পর্কে অনেক হাদীস বর্ণিত হয়েছে। হাদীসে বর্ণিত হয়েছে যে, কেউ যদি ইমাম হুসাইন (আ.)এর মাজারের গম্বুজের নিচে অবস্থান করে তাহলে তার সওয়াবের পরিমাণ আরাফাতের ময়দানে উপস্থিত লোকদের চেয়ে কোন অংশে কম না বরং বেশী এবং সে তাদের থেকেও উত্তম। ইমাম হুসাইন (আ.)এর যিয়ারতের পদ্ধতি যিয়ারতের অধ্যায়ে বর্ণিত হয়েছে। তবে আমাদের স্মরণে রাখতে হবে যে, কোন ব্যাক্তি যেন তার ওয়াজিব হজ্বকে অমূল্যায়ণ করে যিয়ারত করতে না যায়।

৩. আসরের নামাজের পরে দোয়া-এ আরাফা পাঠের পূর্বে দুই রাকাত নামাজ পড়তে হবে এবং আল্লাহর কাছে নিজের গুনাহের স্বীকারোক্তি করতে হবে যেন সেও আরাফাতের ময়দানে উপস্থিতির সওয়াব অর্জন করতে পারে এবং তার গুনাহকে ক্ষমা করে দেয়া হয়। অতঃপর মাসুম (আ.)গণের বর্ণনা অনুযায়ি দোয়া-এ আরাফা পাঠ করতে হবে এবং আরাফার আমলসমূহ সম্পাদন করে। উক্ত দিনের আমল এতই বেশী যা এখানে বর্ণনা করা সম্ভব না। তারপরেও কিছু আমল উল্লেখ করা হলো:

শেখ কাফআমী (রহ.) মিসবাহ নামক গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন যে, আরাফাতের দিনে রোজা রাখা মুস্তাহাব। তবে খেয়াল রাখতে হবে যেন রোজা রাখার কারণে দোয়া পাঠের ক্ষেত্রে কোন সমস্যা পরিলক্ষিত না হয়। যাওয়ালের পূর্বে গোসল করা মুস্তাহাব এবং আরাফার দিন ও রাতে ইমাম হুসাইন (আ.)এর যিয়ারত পাঠ করা মুস্তাহাব। যোহর ও আসরের নামাজ খোলা আকাশের নিচে পড়তে হবে। তারপরে দুই রাকাত নামাজ পড়তে হবে। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে এবং দ্বিতীয় রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে সুরা কাফিরুন পাঠ করতে হবে।

অতঃপর চার রাকাত নামাজ পড়তে হবে প্রথম রাকাতে সুরা ফাতিহার পরে ৫০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতীয় রাকাতটিও অনুরূপ পদ্ধতিতে পড়তে হবে। অবশিষ্ট দুই রাকাত নামাজ উল্লেখিত পদ্ধতিতে পড়তে হবে।

শেখ বলেছেন: এ চার রাকাত নামাজটি আমীরুল মুমিনিন (আ.)এর মুস্তাহাব নামাজের ন্যায় যা শুক্রবারের আমলে বর্ণিত হয়েছে। নামাজের পরে রাসুল (সা.) হতে বর্ণিত এ দশটি তসবিহ পাঠ করতে হবে যা সৈয়দ ইবনে তাউস (রহ.) তার ইক্ববালুল আমাল নামক গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন যা নিন্মরূপ:

سُبْحَانَ الَّذي‏ فِي‏ السَّمآءِ عَرْشُهُ سُبْحَانَ الَّذي‏ فِي‏ الاَرْضِ حُكمُهُ سُبْحَانَ الَّذي‏ فِي‏ الْقُبوُرِ قَضآؤُهُ سُبْحَانَ الَّذي‏ فِي‏ الْبَحْرِ سَبيلُهُ سُبْحَانَ الَّذي‏ فِي‏ النّارِ سُلْطانُهُ سُبْحَانَ الَّذي‏ فِي‏ الْجَنَّةِ رَحْمَتُهُ سُبْحَانَ الَّذي‏ فِي‏ الْقِيمَةِ عَدْلُهُ سُبْحَانَ الَّذي‏ رَفَعَ السَّمآءَ سُبْحَانَ الَّذي‏ بَسَطَ اِلاَّرْضَ سُبْحَانَ الَّذي‏ لاَ مَلْجَاَ وَلاَ مَنْجا مِنْهُ اِلاَّ إلَيهِ.

অতঃপর ১০০ বার বলতে হবে:

سُبْحَانَ اللَّهِ وَالْحَمْدُ لِلَّهِ وَلاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ وَاللَّهُ اَكبَرُ.

অতঃপর সুরা ইখলাস আয়াতুল কুরসী এবং দুরুদ শরীফ প্রত্যেকটি ১০০ বার পাঠ করতে হবে। তারপরে বলতে হবে:

لا إِلَهَ إِلا اللَّهُ وَحْدَهُ لا شَرِيكَ لَهُ لَهُ الْمُلْكُ وَ لَهُ الْحَمْدُ يُحْيِي وَ يُمِيتُ وَ يُمِيتُ وَ يُحْيِي وَ هُوَ حَيٌّ لا يَمُوتُ بِيَدِهِ الْخَيْرُ وَ هُوَ عَلَى كُلِّ شَيْ ءٍ قَدِيرٌ.

১০ বার বলতে হবে: أَسْتَغْفِرُ اللَّهَ الَّذِي لا إِلَهَ إِلا هُوَ الْحَيُّ الْقَيُّومُ وَ أَتُوبُ إِلَيْهِ, ১০ বার বলতে হবে:   يَا اللَّهُ , ১০ বার বলতে হবে: يَا رَحْمنُ, ১০ বার বলতে হবে: يَا رَحيمُ, ১০ বার বলতে হবে: يَا بَديعَ السَّمواتِ وَالاَرْضِ يَا ذَاالْجَلاَلِ وَالاِكْرَامِ, ১০ বার বলতে হবে: يَا حَيُّ‏ يَا قَيومُ, ১০ বার বলতে হবে: يَا حَنّانُ يَا مَنّانُ, ১০ বার বলতে হবে  يَا لاَ اِلهَ اِلاَّ اَنْت, ১০ বার বলতে হবে: اَمِينَ

ইমাম জাফর সাদিক্ব (আ.) হতে বর্ণিত বিশেষ দুরুদ শরীফটি নিন্মরূপ:

اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ يَا مَنْ هُوَ أَقْرَبُ إِلَيَّ مِنْ حَبْلِ الْوَرِيدِ يَا مَنْ يَحُولُ بَيْنَ الْمَرْءِ وَ قَلْبِهِ يَا مَنْ هُوَ بِالْمَنْظَرِ الْأَعْلَى وَ بِالْأُفُقِ الْمُبِينِ يَا مَنْ هُوَ الرَّحْمَنُ عَلَى الْعَرْشِ اسْتَوَى يَا مَنْ لَيْسَ كَمِثْلِهِ شَيْ ءٌ وَ هُوَ السَّمِيعُ الْبَصِيرُ أَسْأَلُكَ أَنْ تُصَلِّيَ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ .

অতঃপর আল্লাহর কাছে দোয়া করলে ইনশাল্লাহ তার দোয়া কবুল করা হবে। ইমাম সাদিক্ব (আ.) হতে বর্ণিত হয়েছে যে, কেউ যদি এ দুরুদটি পাঠ করে তাহলে সে আহলে বাইত (আ.)দেরকে আনন্দিত করলো। দুরুদ শরীফটি নিন্মরূপ:

اللَّهُمَّ يَا أَجْوَدَ مَنْ أَعْطَى وَ يَا خَيْرَ مَنْ سُئِلَ وَ يَا أَرْحَمَ مَنِ اسْتُرْحِمَ اللَّهُمَّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ فِي الْأَوَّلِينَ وَ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ فِي الْآخِرِينَ وَ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ فِي الْمَلَإِ الْأَعْلَى وَ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ فِي الْمُرْسَلِينَ اللَّهُمَّ أَعْطِ مُحَمَّدا وَ آلَهُ الْوَسِيلَةَ وَ الْفَضِيلَةَ وَ الشَّرَفَ وَ الرِّفْعَةَ وَ الدَّرَجَةَ الْكَبِيرَةَ اللَّهُمَّ إِنِّي آمَنْتُ بِمُحَمَّدٍ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَ آلِهِ وَ لَمْ أَرَهُ فَلا تَحْرِمْنِي فِي [يَوْمِ ] الْقِيَامَةِ رُؤْيَتَهُ وَ ارْزُقْنِي صُحْبَتَهُ وَ تَوَفَّنِي عَلَى مِلَّتِهِ وَ اسْقِنِي مِنْ حَوْضِهِ مَشْرَبا رَوِيّا سَائِغا هَنِيئا لا أَظْمَأُ بَعْدَهُ أَبَدا إِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَيْ ءٍ قَدِيرٌ اللَّهُمَّ إِنِّي آمَنْتُ بِمُحَمَّدٍ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَ آلِهِ وَ لَمْ أَرَهُ فَعَرِّفْنِي فِي الْجِنَانِ وَجْهَهُ اللَّهُمَّ بَلِّغْ مُحَمَّدا صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَ آلِهِ مِنِّي تَحِيَّةً كَثِيرَةً وَ سَلاماً

দোয়া-এ উম্মে দাউদ পাঠ করতে হবে যা রজব মাসের আমলে বর্ণিত হয়েছে। অতঃপর এ তসবিহটি পাঠ করতে হবে যা পাঠের কারণে আল্লাহ তায়ালা তাঁকে অফুরন্ত সওয়াব দান করবেন। তসবিহটি নিন্মরূপ:

سُبْحَانَ اللَّهِ قَبْلَ كُلِّ أَحَدٍ وَ سُبْحَانَ اللَّهِ بَعْدَ كُلِّ أَحَدٍ وَ سُبْحَانَ اللَّهِ مَعَ كُلِّ أَحَدٍ وَ سُبْحَانَ اللَّهِ يَبْقَى رَبُّنَا وَ يَفْنَى كُلُّ أَحَدٍ وَ سُبْحَانَ اللَّهِ تَسْبِيحا يَفْضُلُ تَسْبِيحَ الْمُسَبِّحِينَ فَضْلاً كَثِيراً قَبْلَ كُلِّ أَحَدٍ وَ سُبْحَانَ اللَّهِ تَسْبِيحا يَفْضُلُ تَسْبِيحَ الْمُسَبِّحِينَ فَضْلا كَثِيرا بَعْدَ كُلِّ أَحَدٍ وَ سُبْحَانَ اللَّهِ تَسْبِيحاً يَفْضُلُ تَسْبِيحَ الْمُسَبِّحِينَ فَضْلا كَثِيرا مَعَ كُلِّ أَحَدٍ، وَ سُبْحَانَ اللَّهِ تَسْبِيحاً يَفْضُلُ تَسْبِيحَ الْمُسَبِّحِينَ فَضْلاً كَثِيراً لِرَبِّنَا الْبَاقِي وَ يَفْنَى كُلُّ أَحَدٍ وَ سُبْحَانَ اللَّهِ تَسْبِيحاً لا يُحْصَى وَ لا يُدْرَى وَ لا يُنْسَى وَ لا يَبْلَى وَ لا يَفْنَى وَ لَيْسَ لَهُ مُنْتَهًى وَ سُبْحَانَ اللَّهِ تَسْبِيحاً يَدُومُ بِدَوَامِهِ وَ يَبْقَى بِبَقَائِهِ فِي سِنِي الْعَالَمِينَ وَ شُهُورِ الدُّهُورِ وَ أَيَّامِ الدُّنْيَا وَ سَاعَاتِ اللَّيْلِ وَ النَّهَارِ وَ سُبْحَانَ اللَّهِ أَبَدَ الْأَبَدِ وَ مَعَ الْأَبَدِ مِمَّا لا يُحْصِيهِ الْعَدَدُ وَ لا يُفْنِيهِ الْأَمَدُ وَ لا يَقْطَعُهُ الْأَبَدُ وَ تَبَارَكَ اللَّهُ أَحْسَنُ الْخَالِقِينَ.

অতঃপর বলতে হবে:

اَلْحَمْدُ لِلَّهِ قَبْلَ كُلِّ اَحَدٍ وَالْحَمْدُ لِلَّهِ بَعْدَ كُلِّ اَحَدٍ، اَلْحَمْدُ لِلَّهِ قَبْلَ كُلِّ اَحَدٍ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ بَعْدَ كُلِّ اَحَدٍ وَ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ مَعَ كُلِّ اَحَدٍ وَ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ يبْقي‏ رَبُّنا ويفْني‏ كلُّ اءَحَدٍ وَ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحينَ فَضْلاَ كثيراً قَبْلَ كُلِّ اَحَدٍ وَ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحينَ فَضْلاَ كثيراً بَعْدَ كُلِّ اَحَدٍ وَ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحينَ فَضْلاَ كثيراً مَعَ كُلِّ اَحَدٍ وَ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحِينَ فَضْلاَ كثيراً لِرَبِّنَا الْباقي‏ وَيفْني‏ كلُّ اَحَدٍ وَ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ تَسْبيحاً لاَ يحْصي‏ وَلاَ يدْري‏ وَلاَ ينْسي‏ وَلاَ يبْلي‏ وَلاَ يفْني‏ وَلَيسَ لَهُ مُنْتَهي‏ وَ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ تَسْبيحاً يدوُمُ بِدَوامِهِ وَيبْقي‏ بِبَقآئِهِ فِي‏ سِنِي‏ الْعالَمينَ وَشُهوُرِ الدُّهوُرِ وَاَيَامِ الدُّنْيَا وَساعاتِ اللَّيلِ وَالنَّهارِ وَ اَلْحَمْدُ لِلَّهِ اَبَدَ اِلاَّبَدِ وَمَعَ اِلاَّبَدِ مِمّا لاَ يحْصيهِ الْعَدَدُ وَلاَ يفْنيهِ اِلاَّمَدُ وَلاَ يقْطَعُهُ اِلاَّبَدُ وَتَبارَك اللَّهُ اَحْسَنُ الْخآلِقينَ.

তারপর বলতে হবে:

لاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ قَبْلَ كُلِّ اَحَدٍ وَ لاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ بَعْدَ كُلِّ اَحَدٍ وَلاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ مَعَ كُلِّ اَحَدٍ وَلاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ يبْقي‏ رَبُّنا ويفْني‏ كلُّ اَحَدٍ وَلاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحينَ فَضْلاَ كثيراً قَبْلَ كُلِّ اَحَدٍ وَلاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحينَ فَضْلاَ كثيراً بَعْدَ كُلِّ اَحَدٍ وَلاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحينَ فَضْلاَ كثيراً مَعَ كُلِّ اَحَدٍ وَ لاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحِينَ فَضْلاَ كثيراً لِرَبِّنَا الْباقي‏ وَيفْني‏ كلُّ اَحَدٍ وَلاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ تَسْبيحاً لاَ يحْصي‏ وَلاَ يدْري‏ وَلاَ ينْسي‏ وَلاَ يبْلي‏ وَلاَ يفْني‏ وَلَيسَ لَهُ مُنْتَهي‏ وَلاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ تَسْبيحاً يدوُمُ بِدَوامِهِ وَيبْقي‏ بِبَقآئِهِ فِي‏ سِنِي‏ الْعالَمينَ وَشُهوُرِ الدُّهوُرِ وَاَيَامِ الدُّنْيَا وَساعاتِ اللَّيلِ وَالنَّهارِ وَ لاَ اِلهَ اِلاَّ اللَّهُ اَبَدَ اِلاَّبَدِ وَمَعَ اِلاَّبَدِ مِمّا لاَ يحْصيهِ الْعَدَدُ وَلاَ يفْنيهِ اِلاَّمَدُ وَلاَ يقْطَعُهُ اِلاَّبَدُ وَتَبارَك اللَّهُ اَحْسَنُ الْخآلِقينَ.

এরপর বলতে হবে:

اللَّهُ اَكبَرُ قَبْلَ كُلِّ اَحَدٍ وَاللَّهُ اَكبَرُبَعْدَ كُلِّ اَحَدٍ اللَّهُ اَكبَرُ  قَبْلَ كُلِّ اَحَدٍ الْحَمْدُلِلهِ  بَعْدَ كُلِّ اَحَدٍ اللَّهُ اَكبَرُمَعَ كُلِّ اَحَدٍ اللَّهُ اَكبَرُيبْقي‏ رَبُّنا ويفْني‏ كلُّ اءَحَدٍ وَاللَّهُ اَكبَرُتَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحينَ فَضْلاَ كثيراً قَبْلَ كُلِّ اَحَدٍ اللَّهُ اَكبَرُتَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحينَ فَضْلاَ كثيراً بَعْدَ كُلِّ اَحَدٍ اللَّهُ اَكبَرُ تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحينَ فَضْلاَ كثيراً مَعَ كُلِّ اَحَدٍ اللَّهُ اَكبَرُ  تَسْبيحاً يفْضُلُ تَسْبيحَ الْمُسَبِّحِينَ فَضْلاَ كثيراً لِرَبِّنَا الْباقي‏ وَيفْني‏ كلُّ اَحَدٍ وَ الْحَمْدُلِلهِ  تَسْبيحاً لاَ يحْصي‏ وَلاَ يدْري‏ وَلاَ ينْسي‏ وَلاَ يبْلي‏ وَلاَ يفْني‏ وَلَيسَ لَهُ مُنْتَهي‏ اللَّهُ اَكبَرُ تَسْبيحاً يدوُمُ بِدَوامِهِ وَيبْقي‏ بِبَقآئِهِ فِي‏ سِنِي‏ الْعالَمينَ وَشُهوُرِ الدُّهوُرِ وَاَيَامِ الدُّنْيَا وَساعاتِ اللَّيلِ وَالنَّهارِ اللَّهُ اَكبَرُ  اَبَدَ اِلاَّبَدِ وَمَعَ اِلاَّبَدِ مِمّا لاَ يحْصيهِ الْعَدَدُ وَلاَ يفْنيهِ اِلاَّمَدُ وَلاَ يقْطَعُهُ اِلاَّبَدُ وَتَبارَك اللَّهُ اَحْسَنُ الْخآلِقينَ.

তারপরে শেখ তুসি (রহ.) ইমাম আলী বিন হুসাইন (আ.) হতে বর্ণিত সেই দোয়াটি পাঠ করতে হবে যা তিনি তার মিসবাহ নামক গ্রন্থে শুক্রবারের রাতের আমলে উল্লেখ করেছেন:

اَللّهُمَّ  اَنْتَ اللّهُ رَبُّ الْعَالَمِينَ..............

এছাড়া এদিনে সহীফা এ কামেলার ৪৭ নং দোয়াটি যা এ দিনের পাঠের জন্য উপযুক্ত দোয়া। দোয়াটি মনযোগের সাথে পাঠ করলে আল্লাহ তার ওপরে রহমত নাযিল হবে।

মাম হুসান (আ.)এর প্রসিদ্ধ দোয়া-এ আরাফা পাঠ করতে হবে।

সূত্র: মাফাতিহুল জিনান।