ঈদুল ফিতরের সংক্ষিপ্ত আমলসমূহ 

ফজরের নামাজের পরে এবং ঈদের নামাজে নিন্মোক্ত তাকবির পাঠ করা হচ্ছে মুস্তাহাব: اَللّهُ اَكْبَرُ اَللّهُ اَكْبَرُ لا اِلهَ اِلاّ اللّهُ وَاللّهُ اَكْبَرُ اَللّهُ اَكْبَرُ وَلِلّهِ الْحَمْدُ اَلْحَمْدُ لِلّهِ عَلى ما هَدينا وَلَهُ الشُّكْرُ على ما اَوْلينا ২

ঈদুল ফিতরের সংক্ষিপ্ত আমলসমূহ 

এস, এ, এ

১- ফজরের নামাজের পরে এবং ঈদের নামাজে নিন্মোক্ত তাকবির পাঠ করা হচ্ছে মুস্তাহাব:

اَللّهُ اَكْبَرُ اَللّهُ اَكْبَرُ لا اِلهَ اِلاّ اللّهُ وَاللّهُ اَكْبَرُ اَللّهُ اَكْبَرُ وَلِلّهِ الْحَمْدُ اَلْحَمْدُ لِلّهِ عَلى ما هَدينا وَلَهُ الشُّكْرُ على ما اَوْلينا

২- ঈদের নামাজ আদায়ের পূর্বে ফেতরা দান করা। ফেতরার পরিমাণ হচ্ছে ৩ কেজি চাল অথবা গম। বি:দ্র: যে খাদ্য বেশী খাওয়া হয় তার ফেতরা দিতে হবে চাই তা চাল হোক বা গম।

৩- ঈদের দিন গোসল করা এবং গোসল করার সময় নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করা হচ্ছে মুস্তাহাব:

اَللّهُمَّ ايمانا بِكَ وَتَصْديقا بِكِتابِكَ وَاتِّباعُ سُنَّةِ نَبيِّكَ مُحَمَّدٍ صَلّى اللّهُ عَلَيْهِ وَ الِهِ

এবং গোসল করার পরে পাঠ করতে হবে:

اَللّهُمَّ اجْعَلْهُ كَفّارَةً لِذُنُوبى وَطَهِّرْ دينى اَللّهُمَّ اَذْهِبْ عَنِّى الدَّنَسَ

৪- নতুন বা পরিষ্কার পোষাক পরিধান এবং সুগন্ধি ব্যাবহার করা।

৫- ঈদের নামাজের পূর্বে ইফতারি করা। খুরমা এবং মিষ্টি দ্বারা ইফতারি করা উত্তম। শেইখ মুফিদ (রহ.) বলেছেন: সামান্য পরিমাণ খাকে শেফা (ইমাম হুসাইন (আ.)’এর কবরের মাটি) মুখে দেয়া মুস্তাহাব।

৬- ঈদের নামাজের জন্য ঘর থেকে বাহির হওয়ার সময় ইমাম বাকের (আ.) থেকে বর্ণিত নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করা :

اَللّهُمَّ مَنْ تَهَيَّاءَ فى هذَا الْيَوْمِ اَوْ تَعَبَّاءَ اَوْ اَعَدَّ وَاسْتَعَدَّ لِوِفادَةٍ اِلى مَخْلُوقٍ رَجاَّءَ رِفْدِهِ وَنَوافِلِهِ وَفَواضِلِهِ وَعَطاياهُ فَاِنَّ اِلَيْكَ يا سَيِّدى تَهْيِئَتى وَتَعْبِئَتى وَاِعْدادى وَاسْتِعْدادى رَجاَّءَ رِفْدِكَ وَجَوائِزِكَ وَنَوافِلِكَ وَفَواضِلِكَ وَفَضاَّئِلِكَ وَعَطاياكَ وَقَدْ غَدَوْتُ اِلى عيدٍ مِنْ اَعْيادِ اُمَّةِ نَبيِّكَ مُحَمَّدٍ صَلَواتُ اللّهِ عَلَيْهِ وَعَلى الِهِ وَلَمْ اَفِدْ اِلَيْكَ الْيَوْمَ بِعَمَلٍ صالِحٍ اَثِقُ بِهِ قَدَّمْتُهُ وَلا تَوَجَّهْتُ بِمَخْلُوقٍ اَمَّلْتُهُ وَلكِنْ اَتَيْتُكَ خاضِعاً مُقِرّاً بِذُنُوبى وَاِساَّئَتى اِلى نَفْسى فَيا عَظيمُ يا عَظيمُ يا عَظيمُ اِغْفِرْ لِىَ الْعَظيمَ مِنْ ذُنُوبى فَاِنَّهُ لا يَغْفِرُ الذُّنُوبَ الْعِظامَ اِلاّ اَنْتَ يا لا اِلهَ اِلاّ اَنْتَ يا اَرْحَمَ الرّاحِمينَ

৭- ঈদের নামাজ পড়া। ঈদের নামাজ দুই রাকাত। প্রথম রাকাতে সূরা হামদ’এর পরে সূরা আলা এবং দ্বিতীয় রাকাতে সূরা হামদ’এর পরে সূরা শামস পাঠ করা মুস্তাহাব। প্রথম রাকাতে ৫ টি তাকবির এবং দ্বিতীয় রাকাতে ৪ টি তাকবির দিতে হবে এবং প্রত্যেক তাকবিরের পরে নিন্মোক্ত কুনুত পাঠ করা মুস্তাহাব:

اَللّهُمَّ اَهْلَ الْكِبْرِياَّءِ وَالْعَظَمَةِ وَاَهْلَ الْجُودِ وَالْجَبَرُوتِ وَاَهْلَ الْعَفْوِ وَالرَّحْمَةِ وَاَهْلَ التَّقْوى وَالْمَغْفِرَةِ اَسْئَلُكَ بِحَقِّ هذَا الْيَومِ الَّذى جَعَلْتَهُ لِلْمُسْلِمينَ عيداً وَلِمُحَمَّدٍ صَلَّى اللّهُ عَلَيْهِ وَ الِهِ ذُخْراً [وَشَرَفاً] وَمَزِيْداً اَنْ تُصَلِّىَ عَلى مُحَمَّدٍ وَ الِ مُحَمَّدٍ وَاَنْ تُدْخِلَنى فى كُلِّ خَيْرٍ اَدْخَلْتَ فيهِ مُحَمَّداً وَ الَ مُحَمَّدٍ وَاَنْ تُخْرِجَنى مِنْ كُلِّ سُوَّءٍ اَخْرَجْتَ مِنْهُ مُحَمَّداً وَ الَ مُحَمَّدٍ صَلَواتُكَ عَلَيْهِ وَعَلَيْهِمْ اَللّهُمَّ اِنّى اَسْئَلُكَ خَيْرَ ما سَئَلَكَ مِنْهُ عِبادُكَ الصّالِحُونَ وَاَعُوذُ بِكَ مِمَّا اسْتَعاذَ مِنْهُ عِبادُكَ الْصّالِحُونَ

৮- ইমাম হুসাইন (আ.)’এর যিয়ারত পাঠ করা।

৯- দোয়ায়ে নুদবা পাঠ করা উত্তম। উক্ত দোয়াটির শেষে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করা মুস্তাহাব:

اَعُوذُ بِكَ مِنْ نارٍ حَرُّها لا يُطْفى وَجَديدُها لا يَبْلى وَعَطْشانُها لا يَرْوى

ডান গালকে মাটির সাথে লাগিয়ে বলতে হবে:

اِلهى لا تُقَلِّبْ وَجْهى فى النّارِ بَعْدَ سُجُودى وَتَعْفيرى لَكَ بِغَيْرِ مَنٍّ مِنّى عَلَيْكَ بَلْ لَكَ الْمَنُّ عَلَىَّ

অতঃপর বাম গালকে মাটির সাথে লাগিয়ে বলতে হবে:

اِرْحَمْ مَنْ اَساَّءَ وَاقْتَرَفَ وَاسْتَكانَ وَاعْتَرَفَ

তারপরে সিজদাতে যেয়ে বলতে হবে:

اِنْ كُنْتُ بِئْسَ الْعَبْدُ فَاَنْتَ نِعْمَ الرَّبُّ عَظُمَ الذَّنْبُ مِنْ عَبْدِكَ فَلْيَحْسُنِ الْعَفْوُ مِنْ  عِنْدِكَ يا كَريمُ

তারপরে ১০০ বার বলতে হবে:

اَلْعَفْوَ الْعَفْوَ