হযরত ফাতেমা যাহরা (সা. আ.) এর অমিয় বাণী

(১) একনিষ্ঠতার ফল: হযরত ফাতেমা যাহরা (সালামুল্লাহ আলাইহা) বলেছেন: ‘যে ব্যক্তি নিজের ইবাদতকে একনিষ্ঠভাবে আল্লাহর দরবারে পেশ করে (এবং শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে ইবাদত করে) মহান আল্লাহ তার জন্য সর্বোত্তম কল্যাণ অবতীর্ণ করেন।’ (তোহাফুল উকুল,

হযরত ফাতেমা যাহরা (সা. আ.) এর অমিয় বাণী

(১) একনিষ্ঠতার ফল:
হযরত ফাতেমা যাহরা (সালামুল্লাহ আলাইহা) বলেছেন: ‘যে ব্যক্তি নিজের ইবাদতকে একনিষ্ঠভাবে আল্লাহর দরবারে পেশ করে (এবং শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে ইবাদত করে) মহান আল্লাহ তার জন্য সর্বোত্তম কল্যাণ অবতীর্ণ করেন।’ (তোহাফুল উকুল, পৃ. ৯৬০)

(২) আহলে বাইত (আ.) প্রেমীদের মৃত্যু হচ্ছে শাহাদতের সমতুল্য:
ফাতেমা বিনতে মুসা ইবনে জাফার (আ.) হতে বর্ণিত, -যার সনদ হযরত ফাতেমা যাহরা (সা. আ.) এর সাথে সংযুক্ত হয়েছে- তিনি বলেন: আল্লাহর রাসূল (স.) বলেছেন: জেনে রাখ! যে ব্যক্তি আহলে বাইত (আ.) এর ভালবাসা অন্তরে নিয়ে মৃত্যুবরণ করে, তার মৃত্যু শহীদের মৃত্যুর ন্যায়’। (আওয়ালেমুল উলুম, খণ্ড ২১, পৃ. ৩৫৩)

(৩) আলী (আ.) এর প্রতি ভালবাসা স্থাপনকারীরা সফলকাম হবে:
তিনি (আ.) বলেছেন: প্রকৃত ও পূর্ণ সফলকাম ব্যক্তি হচ্ছে সে, যে নিজের জীবদ্দশায় এবং মৃত্যুর পর আলী (আ.) কে ভালবাসে। (শারহে নাহজুল বালাগাহ, ২য় খণ্ড, পৃ. ৪৪৯; মাজমাউয যাওয়ায়েদ, ৯ম খণ্ড, পৃ. ১৩২)

(৪) মহানবী (স.) এর আহলে বাইত পরিচিতি:
তিনি (সা. আ.) বলেছেন: আমরা রাসূল (স.) এর আহলে বাইত; আমরা আল্লাহ এবং তাঁর বান্দাদের মাঝে মধস্থতাকারী, আমরা তাঁর বিশেষ বান্দা এবং তাঁর পবিত্র স্থান, আমরা তাঁর স্পষ্ট দলিল এবং নবীগণ (আলাহিমুস সালাম) এর উত্তরাধিকারী। (শারহে নাহজুল বালাগাহ, খণ্ড ১৬, পৃ. ২১১)

(৫) সূরা হাদীদ, ওয়াকেয়া, আর রাহমান পড়ার সওয়াব:
তিনি (সা. আ.) বলেছেন: সূরা হাদিদ, ওয়াকেয়া এবং আর রাহমান তেলাওয়াতকারীকে পৃথিবী এবং আকাশে বেহেশতের অধিবাসী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। (কানযুল উম্মাল, ১ম খণ্ড, পৃ. ৫৮২)

(৬) সর্বোত্তম ব্যক্তি:
তিনি (সা. আ.) বলেছেন: তোমাদের মধ্যে সর্বোত্তম ব্যক্তি হচ্ছে সে, যে ব্যক্তি লোকদের সাথে নম্রতার সথে আচরণ করে এবং তাদের স্ত্রীদের সাথে উত্তম আচরণ করে। (দালায়েলুল ইমামাহ, পৃ. ৭৬; কানযুল উম্মাল, ৭ম খণ্ড, পৃ. ২২৫)

(৭) মু’মিনদের জন্য মহান আল্লাহ পৃথিবীতে তিনটি জিনিস পছন্দ করেছেন:
হযরত ফাতেমা যাহরা (সা. আ.) বলেন: পার্থিব জিনিষের মধ্যে মহান আল্লাহ্ ৩টি জিনিস পছন্দ করেন:
(ক) কোরআন তেলাওয়াত করা।
(খ) আল্লাহর রাসূল (স.) এর চেহারা মোবারকের দিকে তাকানো।
(গ) আল্লাহর রাস্তায় দান করা।