১৪ মাসুম (আ .)গণের বিশেষ নফল নামাজ সমূহ

১৪ মাসুম (আ .)গণের বিশেষ নফল নামাজ সমূহ

১৪ মাসুম (আ .)গণের বিশেষ নফল নামাজ সমূহ

রাসুল, হজরত মোহাম্মাদ, হজরত আলি, ইমাম হাসান, ইমাম হুসাইন, ইমাম জয়নুল আবেদিন, ইমাম বাকের, ইমাম জাফর সাদিক, ইমাম কাযিম, ইমাম রেযা, ইমাম মোহাম্মাদ তাকি, ইমাম আলি নাকি, ইমাম হাসান আসকারি, ইমাম মাহদি, নফল নামাজ,

এস, এ, এ

রাসুল (সা.) এর বিশেষ নফল নামাজ

রাসুল (সা.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজ হচ্ছে দুই রাকাত। নামাজটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১৫ বার সুরা কদর পাঠ করতে হবে।

রুকু অবস্থায় ১৫ বার সুরা কদর পাঠ করতে হবে।

রুকু থেকে উঠার পরে ১৫ বার সুরা কদর পাঠ করতে হবে।

প্রথম সেজদাতে ১৫ বার সুরা কদর পাঠ করতে হবে।

সেজদা থেকে উঠে ১৫ বার সুরা কদর পাঠ করতে হবে।

দ্বিতিয় সেজদাতে ১৫ বার সুরা কদর পাঠ করতে হবে।

আবার সেজদা থেকে উঠে ১৫ বার সুরা কদর পাঠ করতে হবে।

দ্বিতিয় রাকাত ও অনুরুপভাবে পাঠ করতে হবে। অপঃপর তাশাহুদ ও সালামের মাধ্যমে নামাজ শেষ করতে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে।দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

 

হজরত আলি (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

হজরত আলি (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে ৪ রাকাত এবং নামাজটি দুই দুই রাকাত করে পড়তে হবে। নামাজটি পড়ার পদ্ধতি হচ্ছে নিন্মরূপ:

প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ৫০ বার সুরা ইখলাস। দ্বিতিয় রাকাতটিও অনুরুপভাবে পড়তে হবে। পরের দুই রাকাতও অনুরুপভাবে পড়তে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরুপ:

سُبْحَانَ مَنْ لا تَبِيدُ مَعَالِمُهُ سُبْحَانَ مَنْ لا تَنْقُصُ خَزَائِنُهُ سُبْحَانَ مَنْ لا اضْمِحْلالَ لِفَخْرِهِ سُبْحَانَ مَنْ لا يَنْفَدُ مَا عِنْدَهُ سُبْحَانَ مَنْ لا انْقِطَاعَ لِمُدَّتِهِ سُبْحَانَ مَنْ لا يُشَارِكُ أَحَدا فِي أَمْرِهِ سُبْحَانَ مَنْ لا إِلَهَ غَيْرُهُ پس دعا كند بعد از اين و بگويد يَا مَنْ عَفَا عَنِ السَّيِّئَاتِ وَ لَمْ يُجَازِ بِهَا ارْحَمْ عَبْدَكَ يَا اللَّهُ نَفْسِي نَفْسِي أَنَا عَبْدُكَ يَا سَيِّدَاهْ أَنَا عَبْدُكَ بَيْنَ يَدَيْكَ أَيَا رَبَّاهْ إِلَهِي بِكَيْنُونَتِكَ يَا أَمَلاهْ يَا رَحْمَانَاهْ يَا غِيَاثَاهْ عَبْدُكَ عَبْدُكَ لا حِيلَةَ لَهُ يَا مُنْتَهَى رَغْبَتَاهْ يَا مُجْرِيَ الدَّمِ فِي عُرُوقِي [عَبْدُكَ‏] يَا سَيِّدَاهْ يَا مَالِكَاهْ أَيَا هُوَ أَيَا هُوَ يَا رَبَّاهْ عَبْدُكَ عَبْدُكَ لا حِيلَةَ لِي وَ لا غِنَى بِي عَنْ نَفْسِي وَ لا أَسْتَطِيعُ لَهَا ضَرّا وَ لا نَفْعا وَ لا أَجِدُ مَنْ أُصَانِعُهُ تَقَطَّعَتْ أَسْبَابُ الْخَدَائِعِ عَنِّي وَ اضْمَحَلَّ كُلُّ مَظْنُونٍ عَنِّي أَفْرَدَنِي الدَّهْرُ إِلَيْكَ فَقُمْتُ بَيْنَ يَدَيْكَ هَذَا الْمَقَامَ يَا إِلَهِي بِعِلْمِكَ كَانَ هَذَا كُلُّهُ فَكَيْفَ أَنْتَ صَانِعٌ بِي وَ لَيْتَ شِعْرِي كَيْفَ تَقُولُ لِدُعَائِي أَ تَقُولُ نَعَمْ أَمْ تَقُولُ لا، فَإِنْ قُلْتَ لا فَيَا وَيْلِي يَا وَيْلِي يَا وَيْلِي يَا عَوْلِي يَا عَوْلِي يَا عَوْلِي يَا شِقْوَتِي يَا شِقْوَتِي يَا شِقْوَتِي يَا ذُلِّي يَا ذُلِّي يَا ذُلِّي إِلَى مَنْ وَ مِمَّنْ أَوْ عِنْدَ مَنْ أَوْ كَيْفَ أَوْ مَا ذَا أَوْ إِلَى أَيِّ شَيْ‏ءٍ أَلْجَأُ وَ مَنْ أَرْجُو وَ مَنْ يَجُودُ عَلَيَّ بِفَضْلِهِ حِينَ تَرْفُضُنِي يَا وَاسِعَ الْمَغْفِرَةِ وَ إِنْ قُلْتَ نَعَمْ كَمَا هُوَ الظَّنُّ بِكَ وَ الرَّجَاءُ لَكَ فَطُوبَى لِي أَنَا السَّعِيدُ وَ أَنَا الْمَسْعُودُ فَطُوبَى لِي وَ أَنَا الْمَرْحُومُ َا مُتَرَحِّمُ يَا مُتَرَئِّفُ يَا مُتَعَطِّفُ يَا مُتَجَبِّرُ [مُتَحَنِّنُ‏] يَا مُتَمَلِّكُ يَا مُقْسِطُ لا عَمَلَ لِي أَبْلُغُ بِهِ نَجَاحَ حَاجَتِي أَسْأَلُكَ بِاسْمِكَ الَّذِي جَعَلْتَهُ فِي مَكْنُونِ غَيْبِكَ وَ اسْتَقَرَّ عِنْدَكَ فَلا يَخْرُجُ مِنْكَ إِلَى شَيْ‏ءٍ سِوَاكَ أَسْأَلُكَ بِهِ وَ بِكَ وَ بِهِ فَإِنَّهُ أَجَلُّ وَ أَشْرَفُ أَسْمَائِكَ لا شَيْ‏ءَ لِي غَيْرُ هَذَا وَ لا أَحَدَ أَعْوَدُ عَلَيَّ مِنْكَ يَا كَيْنُونُ يَا مُكَوِّنُ يَا مَنْ عَرَّفَنِي نَفْسَهُ يَا مَنْ أَمَرَنِي بِطَاعَتِهِ يَا مَنْ نَهَانِي عَنْ مَعْصِيَتِهِ وَ يَا مَدْعُوُّ يَا مَسْئُولُ يَا مَطْلُوبا إِلَيْهِ رَفَضْتُ وَصِيَّتَكَ الَّتِي أَوْصَيْتَنِي وَ لَمْ أُطِعْكَ وَ لَوْ أَطَعْتُكَ فِيمَا أَمَرْتَنِي لَكَفَيْتَنِي مَا قُمْتُ إِلَيْكَ فِيهِ وَ أَنَا مَعَ مَعْصِيَتِي لَكَ رَاجٍ، فَلا تَحُلْ بَيْنِي وَ بَيْنَ مَا رَجَوْتُ يَا مُتَرَحِّما لِي أَعِذْنِي مِنْ بَيْنِ يَدَيَّ وَ مِنْ خَلْفِي وَ مِنْ فَوْقِي وَ مِنْ تَحْتِي وَ مِنْ كُلِّ جِهَاتِ الْإِحَاطَةِ بِي اللَّهُمَّ بِمُحَمَّدٍ سَيِّدِي وَ بِعَلِيٍّ وَلِيِّي وَ بِالْأَئِمَّةِ الرَّاشِدِينَ عَلَيْهِمُ السَّلامُ اجْعَلْ عَلَيْنَا صَلَوَاتِكَ وَ رَأْفَتَكَ وَ رَحْمَتَكَ وَ أَوْسِعْ عَلَيْنَا مِنْ رِزْقِكَ وَ اقْضِ عَنَّا الدَّيْنَ وَ جَمِيعَ حَوَائِجِنَا يَا اللَّهُ يَا اللَّهُ يَا اللَّهُ إِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَيْ‏ءٍ قَدِيرٌ

উক্ত নামাজটি শুক্রবার দিন এবং রাতে পড়ার জন্য গুরুত্ব সহকারে বর্ণিত হয়েছে।

 

হজরত ফাতেমা (সা.আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

হজরত ফাতেমা (সা.আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে দুই রাকাত। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১০০ বার সুরা কদর এবং দ্বিতিয় রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১০০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

سُبْحَانَ ذِي الْعِزِّ الشَّامِخِ الْمُنِيفِ سُبْحَانَ ذِي الْجَلالِ الْبَاذِخِ الْعَظِيمِ سُبْحَانَ ذِي الْمُلْكِ الْفَاخِرِ الْقَدِيمِ سُبْحَانَ مَنْ لَبِسَ الْبَهْجَةَ وَ الْجَمَالَ سُبْحَانَ مَنْ تَرَدَّى بِالنُّورِ وَ الْوَقَارِ سُبْحَانَ مَنْ يَرَى أَثَرَ النَّمْلِ فِي الصَّفَا سُبْحَانَ مَنْ يَرَى وَقْعَ الطَّيْرِ فِي الْهَوَاءِ سُبْحَانَ مَنْ هُوَ هَكَذَا لا هَكَذَا غَيْرُهُ

অন্য একটি রেওয়ায়েতে বর্ণিত হয়েছে যে, উক্ত নামাজের পরে হজরত ফাতেমা যাহরা (সা.আ.) থেকে বর্ণিত তসবিহ (১০০ বার আল্লাহু আকবার, ৩৩ বার আল হামদুলিল্লাহ, ৩৩ বার সুবহান আল্লাহ) অতঃপর ১০০ বার দুরুদ শরিফ পাঠ করতে হবে। অতঃপর দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম হাসান (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম হাসান (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে ৪ রাকাত। উক্ত নামাজটি দুই দুই রাকাত করে পড়তে হবে। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ২৫ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতিয় রাকাতটিও অনুরুপভাবে পাঠ করতে হবে। চার রাকাত নামাজ শেষ হলে নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

اللَّهُمَّ إِنِّي أَتَقَرَّبُ إِلَيْكَ بِجُودِكَ وَ كَرَمِكَ وَ أَتَقَرَّبُ إِلَيْكَ بِمُحَمَّدٍ عَبْدِكَ وَ رَسُولِكَ وَ أَتَقَرَّبُ إِلَيْكَ بِمَلائِكَتِكَ الْمُقَرَّبِينَ وَ أَنْبِيَائِكَ وَ رُسُلِكَ أَنْ تُصَلِّيَ عَلَى مُحَمَّدٍ عَبْدِكَ وَ رَسُولِكَ وَ عَلَى آلِ مُحَمَّدٍ وَ أَنْ تُقِيلَنِي عَثْرَتِي وَ تَسْتُرَ عَلَيَّ ذُنُوبِي وَ تَغْفِرَهَا لِي وَ تَقْضِيَ لِي حَوَائِجِي وَ لا تُعَذِّبَنِي بِقَبِيحٍ كَانَ مِنِّي فَإِنَّ عَفْوَكَ وَ جُودَكَ يَسَعُنِي إِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَيْ‏ءٍ قَدِيرٌ

অতঃপর আল্লাহর কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম হুসাইন (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম হুসাইন (আ.) থেকে বর্ণিত নফল নামাজটি হচ্ছে ৪ রাকাত। নামাজটি দুই দুই রাকাত করে পড়তে হবে।

প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহা ৫০ বার এবং সুরা ইখলাস ৫০ বার পাঠ করতে হবে।

রুকুতে ১০ বার সুরা ফাতেহা এবং ১০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে।

রুকু থেকে উঠে দাঁড়ানো অবস্থায় ১০ বার সুরা ফাতেহা এবং ১০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে।

প্রথম সেজদাতে ১০ বার সুরা ফাতেহা এবং ১০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে।

প্রথম সিজদা থেকে উঠে বসা অবস্থায় ১০ বার সুরা ফাতেহা এবং ১০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে।

দ্বিতিয় সেজদায় ১০ বার সুরা ফাতেহা এবং ১০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে।

 দ্বিতিয় রাকাতটিও অনুরুপভাবে পাঠ করতে হবে। চার রাকাত নামাজ শেষ হলে নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

اَللّهُمَّ اَنْتَ الَّذِى اسْتَجَبْتَ لاِدَمَ وَحَوّا، اِذْ قالا رَبَّنا ظَلَمْنا اَنْفُسَنا وَاِنْ لَمْتَغْفِرْ لَنا وَتَرْحَمْنا لَنَکُونَنَّ مِنَ الْخاسِرینَ، وَناداکَ نُوحٌ فَاسْتَجَبْتَ لَهُ، وَنَجَّیْتَهُ وَاَهْلَهُ مِنَ الْکَرْبِ الْعَظیمِ، وَاَطْفَاْتَ نارَ نُمْرُودَ عَنْ خَلیلِکَ اِبْراهیمَ، فَجَعَلْتَها بَرْداً وَسَلاماً،  وَاَنْتَ الَّذِى اسْتَجَبْتَ لاَِیُّوبَ، اِذْ نادى رَبِّ مَسَّنِىَ الضُّرُّ وَاَنْتَ اَرْحَمُ الرّاحِمینَ، فَکَشَفْتَ ما بِهِ مِنْ ضُرٍّ، وَآتَیْتَهُ اَهْلَهُ وَمِثْلَهُمْ مَعَهُمْ رَحْمَةً مِنْ عِنْدِکَ، وَذِکْرى لاُِولِى الاَْلْبابِ، وَاَنْتَ الَّذِى اسْتَجَبْتَ لِذِى النُّونِ، حینَ ناداکَ فِى الظُّلُماتِ اَنْ لا اِلـهَ اِلاّ اَنْتَ، سُبْحانَکَ اِنّى کُنْتُ مِنَ الظّالِمینَ، فَنَجَّیْتَهُ مِنَ الْغَمِّ، وَاَنْتَ الَّذِى اسْتَجَبْتَ لِمُوسى وَهرُونَ دَعْوَتَهُما، حینَ قُلْتَ: قَدْ اُجیبَتْ دَعْوَتُکُما فَاسْتَقیما. وَاَغْرَقْتَ فِرْعَوْنَ وَقَوْمَهُ، وَغَفَرْتَ لِداوُدَ ذَنْبَهُ، وَتُبْتَ عَلَیْهِ رَحْمَةً مِنْکَ وَذِکْرى، وَفَدَیْتَ اِسْماعیلَ بِذِبْح عَظیم بَعْدَما اَسْلَمَ، وَتَلَّهُ لِلْجَبینِ، فَنادَیْتَهُ بِالْفَرَجِ وَالرَّوْحِ، وَاَنْتَ الَّذى ناداکَ زَکَرِیّا نِدآءً خَفِیّاً، فَقالَ رَبِّ اِنّى وَهَنَ الْعَظْمُ مِنّى، وَاشْتَعَلَ الرَّاْسُ شَیْباً، وَلَمْ اَکُنْ بِدُعآئِکَ رَبِّ شَقِیّاً، وَقُلْتَ: یَدْعُونَنا رَغَباً وَرَهَباً وَکانُوا لَنا خاشِعینَ، وَاَنْتَ الَّذِى اسْتَجَبْتَ لِلَّذینَ آمَنُوا وَعَمِلُوا الصّالِحاتِ، لِتَزیدَهُمْ مِنْ فَضْلِکَ، فَلا تَجْعَلْنى مِنْ اَهْوَنِ الدّاعینَ لَکَ، وَالرّاغِبینَ اِلَیْکَ، وَاسْتَجِبْ لى کَمَا اسْتَجَبْتَ لَهُمْ بِحَقِّهِمْ عَلَیْکَ، فَطَهِّرْنى بِتَطْهیرِکَ، وَتَقَبَّلْ صَلاتى وَدُعآئى بِقَبُول حَسَن، وَطَیِّبْ بَقِیَّةَ حَیاتى، وَطَیِّبْ وَفاتى، وَاخْلُفْنى فیمَنْ اَخْلُفُ، وَاحْفَظْنى یا رَبِّ بِدُعآئى، وَاجْعَلْ ذُرِّیَّتى ذُرِّیَّةً طَیِّبَةً، تَحُوطُها بِحِیاطَتِکَ، بِکُلِّ ما حُطْتَ بِهِ ذُرِّیَّةَ اَحَد مِنْ اَوْلِیآئِکَ وَاَهْلِ طـاعَتِکَ، بِرَحْمَتِکَ یا اَرْحَمَ الرّاحِمینَ، یا مَنْ هُوَ عَلى کُلِّ شَیْء رَقیبٌ، وَلِکُلِّ داع مِنْ خَلْقِکَ مُجیبٌ، وَمِنْ کُلِّ سآئِل قَریبٌ، اَسْئَلُکَ یا لا اِلـهَ اِلاَّ اَنْتَ، اَلْحَىُّ الْقَیُّومُ، اَلاَْحَدُ الصَّمَدُ الَّذى لَمْ یَلِدْ وَلَمْ یُولَدْ، وَلَمْ یَکُنْ لَهُ کُفُواً اَحَدٌ، وَبِکُلِّ اسْم رَفَعْتَ بِهِ سَمآئَکَ، وَفَرَشْتَ بِهِ اَرْضَکَ، وَاَرْسَیْتَ بِهِ الْجِبالَ، وَاَجْرَیْتَ بِهِ الْمآءَ، وَسَخَّرْتَ بِهِ السَّحابَ وَالشَّمْسَ وَالْقَمَرَ وَالنُّجُومَ وَاللَّیْلَ وَالنَّهارَ، وَخَلَقْتَ الْخَلائِقَ کُلَّها، اَسْئَلُکَ بِعَظَمَةِ وَجْهِکَ الْعَظیمِ، اَلَّذى اَشْرَقَتْ لَهُ السَّمواتُ وَالاَْرْضُ، فَاَضائَتْ بِهِ الظُّلُماتُ، اِلاّ صَلَّیْتَ عَلى مُحَمَّد وَآلِ مُحَمَّد، وَکَفَیْتَنى اَمْرَ مَعاشى وَمَعادى، وَاَصْلَحْتَ لى شَاْنى کُلَّهُ، وَلَمْ تَکِلْنى اِلى نَفْسى طَرْفَةَ عَیْن، وَاَصْلَحْتَ اَمْرى وَاَمْرَ عِیالى، وَکَفَیْتَنى هَمَّهُمْ، وَاَغْنَیْتَنى وَاِیّاهُمْ مِنْ کَنْزِکَ وَخَزآئِنِکَ، وَسَعَةِ فَضْلِکَ الَّذى لا یَنْفَدُ اَبَداً، وَاَثْبِتْ فى قَلْبى یَنابیعَ الْحِکْمَةِ الَّتى تَنْفَعُنى بِها، وَتَنْفَعُ بِها مَنِ ارْتَضَیْتَ مِنْ عِبادِکَ، وَاجْعَلْ لى مِنَ الْمُتَّقینَ فى آخِرِ الزَّمانِ اِماماً، کَما جَعَلْتَ اِبْراهیمَ الْخَلیلَ اِماماً، فَاِنَّ بِتَوْفیقِکَ یَفُوزُ الْفآئِزُونَ، وَیَتُوبُ التّآئِبُونَ، وَیَعْبُدُکَ الْعابِدُونَ، وَبِتَسْدیدِکَ یَصْلُحُ الصّالِحُونَ الْمُحْسِنُونَ الْمُخْبِتُونَ، اَلْعابِدُونَ لَکَ، اَلْخائِفُونَ مِنْکَ، وَبِاِرْشادِکَ نَجَا النّاجُونَ مِنْ نارِکَ، وَاَشْفَقَ مِنْهَا الْمُشْفِقُونَ مِنْ خَلْقِکَ وَ بِخِذْلانِکَ خَسِرَ الْمُبْطِلُونَ، وَهَلَکَ الظّالِمُونَ، وَغَفَلَ الْغافِلُونَ، اَللّهُمَّ آتِ نَفْسى تَقْویها، فَاَنْتَ وَلِیُّها وَمَوْلیها، وَاَنْتَ خَیْرُ مَنْ زَکّیها، اَللّهُمَّ بَیِّنْ لَها هُداها، وَاَلْهِمْها تَقْویها، وَبَشِّرْها بِرَحْمَتِکَ حینَ تَتَوَفّاها، وَنَزِّلْها مِنَ الْجِنانِ عُلْیاها، وَطَیِّبْ وَفاتَها وَمَحْیاها، وَاَکْرِمْ مُنْقَلَبَها وَمَثْویها، وَمُسْتَقَرَّها وَمَاْویها، فَاَنْتَ وَلِیُّها وَمَوْلیها.

অতঃপর মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম জয়নুল আবেদিন (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম জয়নুল আবেদিন (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে ৪ রাকাত। উক্ত নামাজটি দুই দুই রাকাত করে পড়তে হবে। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহা ও ১০০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতিয় রাকাতটিও অনুরুপভাবে পাঠ করতে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

يَا مَنْ أَظْهَرَ الْجَمِيلَ وَ سَتَرَ الْقَبِيحَ يَا مَنْ لَمْ يُؤَاخِذْ بِالْجَرِيرَةِ وَ لَمْ يَهْتِكِ السِّتْرَ يَا عَظِيمَ الْعَفْوِ يَا حَسَنَ التَّجَاوُزِ يَا وَاسِعَ الْمَغْفِرَةِ يَا بَاسِطَ الْيَدَيْنِ بِالرَّحْمَةِ يَا صَاحِبَ كُلِّ نَجْوَى يَا مُنْتَهَى كُلِّ شَكْوَى يَا كَرِيمَ الصَّفْحِ يَا عَظِيمَ الرَّجَاءِ يَا مُبْتَدِئا بِالنِّعَمِ قَبْلَ اسْتِحْقَاقِهَا يَا رَبَّنَا وَ سَيِّدَنَا وَ مَوْلانَا يَا غَايَةَ رَغْبَتِنَا أَسْأَلُكَ اللَّهُمَّ أَنْ تُصَلِّيَ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ

অতঃপর মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম বাকের (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম বাকের (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে দুই রাকাত। প্রথম রাকাতে ১বার সুরা ফাতেহার পরে ১০০ বার বলতে হবে

“سُبْحَانَ اللَّهِ وَ الْحَمْدُ لِلَّهِ وَ لا إِلَهَ إِلا اللَّهُ وَ اللَّهُ أَكْبَرُ”

দ্বিতিয় রাকাতটিও অনুরুপভাবে পাঠ করতে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ

اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ يَا حَلِيمُ ذُو [ذَا] أَنَاةٍ غَفُورٌ وَدُودٌ أَنْ تَتَجَاوَزَ عَنْ سَيِّئَاتِي وَ مَا عِنْدِي بِحُسْنِ مَا عِنْدَكَ وَ أَنْ تُعْطِيَنِي مِنْ عَطَائِكَ مَا يَسَعُنِي وَ تُلْهِمَنِي فِيمَا أَعْطَيْتَنِي الْعَمَلَ فِيهِ بِطَاعَتِكَ وَ طَاعَةِ رَسُولِكَ وَ أَنْ تُعْطِيَنِي مِنْ عَفْوِكَ مَا أَسْتَوْجِبُ بِهِ كَرَامَتَكَ اللَّهُمَّ أَعْطِنِي مَا أَنْتَ أَهْلُهُ وَ لا تَفْعَلْ بِي مَا أَنَا أَهْلُهُ فَإِنَّمَا أَنَا بِكَ وَ لَمْ أُصِبْ خَيْرا قَطُّ إِلا مِنْكَ يَا أَبْصَرَ الْأَبْصَرِينَ وَ يَا أَسْمَعَ السَّامِعِينَ وَ يَا أَحْكَمَ الْحَاكِمِينَ وَ يَا جَارَ الْمُسْتَجِيرِينَ وَ يَا مُجِيبَ دَعْوَةِ الْمُضْطَرِّينَ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ

অতঃপর মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম জাফর সাদিক  (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম জাফর সাদিক  (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে দুই রাকাত। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১০০ বার সুরা আলে ইমরানের ১৮ নং আয়াতটি পাঠ করতে হবে আয়াতটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

شَهِدَ اللّهُ أَنَّهُ لاَ إِلَـهَ إِلاَّ هُوَ وَالْمَلاَئِكَةُ وَأُوْلُواْ الْعِلْمِ قَآئِمَاً بِالْقِسْطِ لاَ إِلَـهَ إِلاَّ هُوَ الْعَزِيزُ الْحَكِيمُ

দ্বিতিয় রাকাতটিও অনুরুপভাবে পাঠ করতে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

يَا صَانِعَ كُلِّ مَصْنُوعٍ يَا جَابِرَ كُلِّ كَسِيرٍ [كَسْرٍ] وَ يَا حَاضِرَ كُلِّ مَلَإٍ وَ يَا شَاهِدَ كُلِّ نَجْوَى وَ يَا عَالِمَ كُلِّ خَفِيَّةٍ وَ يَا شَاهِدُ [شَاهِدا] غَيْرَ غَائِبٍ وَ يَا غَالِبُ [غَالِبا] غَيْرَ مَغْلُوبٍ وَ يَا قَرِيبُ [قَرِيبا] غَيْرَ بَعِيدٍ وَ يَا مُونِسَ كُلِّ وَحِيدٍ وَ يَا حَيُّ مُحْيِيَ الْمَوْتَى وَ مُمِيتَ الْأَحْيَاءِ الْقَائِمُ [الْقَائِمَ‏] عَلَى كُلِّ نَفْسٍ بِمَا كَسَبَتْ وَ يَا حَيّا حِينَ لا حَيَّ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ

অতঃপর মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম মুসা কাযিম (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম মুসা কাযিম (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে দুই রাকাত। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১২ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

إِلَهِي خَشَعَتِ الْأَصْوَاتُ لَكَ وَ ضَلَّتِ الْأَحْلامُ فِيكَ وَ وَجِلَ كُلُّ شَيْ‏ءٍ مِنْكَ وَ هَرَبَ كُلُّ شَيْ‏ءٍ إِلَيْكَ وَ ضَاقَتِ الْأَشْيَاءُ دُونَكَ وَ مَلَأَ كُلَّ شَيْ‏ءٍ نُورُكَ فَأَنْتَ الرَّفِيعُ فِي جَلالِكَ وَ أَنْتَ الْبَهِيُّ فِي جَمَالِكَ وَ أَنْتَ الْعَظِيمُ فِي قُدْرَتِكَ وَ أَنْتَ الَّذِي لا يَئُودُكَ شَيْ‏ءٌ يَا مُنْزِلَ نِعْمَتِي يَا مُفَرِّجَ كُرْبَتِي وَ يَا قَاضِيَ حَاجَتِي أَعْطِنِي مَسْأَلَتِي بِلا إِلَهَ إِلا أَنْتَ آمَنْتُ بِكَ مُخْلِصا لَكَ دِينِي أَصْبَحْتُ عَلَى عَهْدِكَ وَ وَعْدِكَ مَا اسْتَطَعْتُ أَبُوءُ لَكَ بِالنِّعْمَةِ وَ أَسْتَغْفِرُكَ مِنَ الذُّنُوبِ الَّتِي لا يَغْفِرُهَا غَيْرُكَ يَا مَنْ هُوَ فِي عُلُوِّهِ دَانٍ وَ فِي دُنُوِّهِ عَالٍ وَ فِي إِشْرَاقِهِ مُنِيرٌ وَ فِي سُلْطَانِهِ قَوِيٌّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِهِ

অতঃপর মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম রেযা (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম রেযা (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে ৬ রাকাত। উক্ত নামাজটি দুই রাকাত করে পড়তে হবে। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১০ বার সুরা দাহর পাঠ করতে হবে। সুরা দাহর হচ্ছে নিন্মরূপ:

بِسْمِ اللّهِ الرَّحْمـَنِ الرَّحِيمِ

هَلْ أَتَى عَلَى الْإِنسَانِ حِينٌ مِّنَ الدَّهْرِ لَمْ يَكُن شَيْئًا مَّذْكُورًا

إِنَّا خَلَقْنَا الْإِنسَانَ مِن نُّطْفَةٍ أَمْشَاجٍ نَّبْتَلِيهِ فَجَعَلْنَاهُ سَمِيعًا بَصِيرًا 

إِنَّا هَدَيْنَاهُ السَّبِيلَ إِمَّا شَاكِرًا وَإِمَّا كَفُورًا   

إِنَّا أَعْتَدْنَا لِلْكَافِرِينَ سَلَاسِلَا وَأَغْلَالًا وَسَعِيرًا

إِنَّ الْأَبْرَارَ يَشْرَبُونَ مِن كَأْسٍ كَانَ مِزَاجُهَا كَافُورًا

عَيْنًا يَشْرَبُ بِهَا عِبَادُ اللَّهِ يُفَجِّرُونَهَا تَفْجِيرًا 

يُوفُونَ بِالنَّذْرِ وَيَخَافُونَ يَوْمًا كَانَ شَرُّهُ مُسْتَطِيرًا 

وَيُطْعِمُونَ الطَّعَامَ عَلَى حُبِّهِ مِسْكِينًا وَيَتِيمًا وَأَسِيرًا 

إِنَّمَا نُطْعِمُكُمْ لِوَجْهِ اللَّهِ لَا نُرِيدُ مِنكُمْ جَزَاء وَلَا شُكُورًا  

إِنَّا نَخَافُ مِن رَّبِّنَا يَوْمًا عَبُوسًا قَمْطَرِيرًا  

فَوَقَاهُمُ اللَّهُ شَرَّ ذَلِكَ الْيَوْمِ وَلَقَّاهُمْ نَضْرَةً وَسُرُورًا 

وَجَزَاهُم بِمَا صَبَرُوا جَنَّةً وَحَرِيرًا  

مُتَّكِئِينَ فِيهَا عَلَى الْأَرَائِكِ لَا يَرَوْنَ فِيهَا شَمْسًا وَلَا زَمْهَرِيرًا  

وَدَانِيَةً عَلَيْهِمْ ظِلَالُهَا وَذُلِّلَتْ قُطُوفُهَا تَذْلِيلًا 

وَيُطَافُ عَلَيْهِم بِآنِيَةٍ مِّن فِضَّةٍ وَأَكْوَابٍ كَانَتْ قَوَارِيرَا  

قَوَارِيرَ مِن فِضَّةٍ قَدَّرُوهَا تَقْدِيرًا

وَيُسْقَوْنَ فِيهَا كَأْسًا كَانَ مِزَاجُهَا زَنجَبِيلًا  

عَيْنًا فِيهَا تُسَمَّى سَلْسَبِيلًا

وَيَطُوفُ عَلَيْهِمْ وِلْدَانٌ مُّخَلَّدُونَ إِذَا رَأَيْتَهُمْ حَسِبْتَهُمْ لُؤْلُؤًا مَّنثُورًا 

وَإِذَا رَأَيْتَ ثَمَّ رَأَيْتَ نَعِيمًا وَمُلْكًا كَبِيرًا

عَالِيَهُمْ ثِيَابُ سُندُسٍ خُضْرٌ وَإِسْتَبْرَقٌ وَحُلُّوا أَسَاوِرَ مِن فِضَّةٍ وَسَقَاهُمْ رَبُّهُمْ شَرَابًا طَهُورًا 

إِنَّ هَذَا كَانَ لَكُمْ جَزَاء وَكَانَ سَعْيُكُم مَّشْكُورًا

إِنَّا نَحْنُ نَزَّلْنَا عَلَيْكَ الْقُرْآنَ تَنزِيلًا  

فَاصْبِرْ لِحُكْمِ رَبِّكَ وَلَا تُطِعْ مِنْهُمْ آثِمًا أَوْ كَفُورًا  

وَاذْكُرِ اسْمَ رَبِّكَ بُكْرَةً وَأَصِيلًا 

وَمِنَ اللَّيْلِ فَاسْجُدْ لَهُ وَسَبِّحْهُ لَيْلًا طَوِيلًا   

إِنَّ هَؤُلَاء يُحِبُّونَ الْعَاجِلَةَ وَيَذَرُونَ وَرَاءهُمْ يَوْمًا ثَقِيلًا  

نَحْنُ خَلَقْنَاهُمْ وَشَدَدْنَا أَسْرَهُمْ وَإِذَا شِئْنَا بَدَّلْنَا أَمْثَالَهُمْ تَبْدِيلًا

إِنَّ هَذِهِ تَذْكِرَةٌ فَمَن شَاء اتَّخَذَ إِلَى رَبِّهِ سَبِيلًا

وَمَا تَشَاؤُونَ إِلَّا أَن يَشَاء اللَّهُ إِنَّ اللَّهَ كَانَ عَلِيمًا حَكِيمًا  

يُدْخِلُ مَن يَشَاء فِي رَحْمَتِهِ وَالظَّالِمِينَ أَعَدَّ لَهُمْ عَذَابًا أَلِيمًا

নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

يَا صَاحِبِي فِي شِدَّتِي وَ يَا وَلِيِّي فِي نِعْمَتِي وَ يَا إِلَهِي وَ إِلَهَ إِبْرَاهِيمَ وَ إِسْمَاعِيلَ وَ إِسْحَاقَ وَ يَعْقُوبَ يَا رَبَّ كهيعص وَ يس وَ الْقُرْءَانِ الْحَكِيمِ أَسْأَلُكَ يَا أَحْسَنَ مَنْ سُئِلَ وَ يَا خَيْرَ مَنْ دُعِيَ وَ يَا أَجْوَدَ مَنْ أَعْطَى وَ يَا خَيْرَ مُرْتَجًى أَسْأَلُكَ أَنْ تُصَلِّيَ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ

অতঃপর মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম মোহাম্মাদ তাকি (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম মোহাম্মাদ তাকি (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে দুই রাকাত। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ৭০ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। দ্বিতিয় রাকাতটিও অনুরুপভাবে পাঠ করতে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

اللَّهُمَّ رَبَّ الْأَرْوَاحِ الْفَانِيَةِ وَ الْأَجْسَادِ الْبَالِيَةِ أَسْأَلُكَ بِطَاعَةِ الْأَرْوَاحِ الرَّاجِعَةِ إِلَى أَجْسَادِهَا [أَحِبَّائِهَا] وَ بِطَاعَةِ الْأَجْسَادِ الْمُلْتَئِمَةِ بِعُرُوقِهَا وَ بِكَلِمَتِكَ النَّافِذَةِ بَيْنَهُمْ وَ أَخْذِكَ الْحَقَّ مِنْهُمْ وَ الْخَلائِقُ بَيْنَ يَدَيْكَ يَنْتَظِرُونَ فَصْلَ قَضَائِكَ وَ يَرْجُونَ رَحْمَتَكَ وَ يَخَافُونَ عِقَابَكَ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ وَ اجْعَلِ النُّورَ فِي بَصَرِي وَ الْيَقِينَ فِي قَلْبِي وَ ذِكْرَكَ بِاللَّيْلِ وَ النَّهَارِ عَلَى لِسَانِي وَ عَمَلا صَالِحا فَارْزُقْنِي

অতঃপর মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম আলি নাকি (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম আলি নাকি (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে দুই রাকাত। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১ বার সুরা ইয়াসিন এবং দ্বিতিয় রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১ বার সুরা রহমান পাঠ করতে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

يَا بَارُّ يَا وَصُولُ يَا شَاهِدَ كُلِّ غَائِبٍ وَ يَا قَرِيبُ غَيْرَ بَعِيدٍ وَ يَا غَالِبُ غَيْرَ مَغْلُوبٍ وَ يَا مَنْ لا يَعْلَمُ كَيْفَ هُوَ إِلا هُوَ يَا مَنْ لا تُبْلَغُ قُدْرَتُهُ أَسْأَلُكَ اللَّهُمَّ بِاسْمِكَ الْمَكْنُونِ الْمَخْزُونِ الْمَكْتُومِ عَمَّنْ شِئْتَ الطَّاهِرِ الْمُطَهَّرِ الْمُقَدَّسِ النُّورِ التَّامِّ الْحَيِّ الْقَيُّومِ الْعَظِيمِ نُورِ السَّمَاوَاتِ وَ نُورِ الْأَرَضِينَ عَالِمِ الْغَيْبِ وَ الشَّهَادَةِ الْكَبِيرِ الْمُتَعَالِ الْعَظِيمِ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ

অতঃপর মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম হাসান আসকারি (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম হাসান আসকারি (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ নফল নামাজটি হচ্ছে ৪ রাকাত। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১৫ বার সুরা যিলযাল এবং দ্বিতিয় রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে ১৫ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে। পরবর্তি দুই রাকাতও অনুরুপভাবে পড়তে হবে। নামাজান্তে নিন্মোক্ত দোয়াটি পাঠ করতে হবে। দোয়াটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ بِأَنَّ لَكَ الْحَمْدَ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ الْبَدِي‏ءُ قَبْلَ كُلِّ شَيْ‏ءٍ وَ أَنْتَ الْحَيُّ الْقَيُّومُ وَ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ الَّذِي لا يُذِلُّكَ شَيْ‏ءٌ وَ أَنْتَ كُلَّ يَوْمٍ فِي شَأْنٍ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ خَالِقُ مَا يُرَى وَ مَا لا يُرَى الْعَالِمُ بِكُلِّ شَيْ‏ءٍ بِغَيْرِ تَعْلِيمٍ أَسْأَلُكَ بِآلائِكَ وَ نَعْمَائِكَ بِأَنَّكَ اللَّهُ الرَّبُّ الْوَاحِدُ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ الرَّحْمَنُ الرَّحِيمُ وَ أَسْأَلُكَ بِأَنَّكَ أَنْتَ اللَّهُ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ الْوِتْرُ الْفَرْدُ الْأَحَدُ الصَّمَدُ الَّذِي لَمْ يَلِدْ وَ لَمْ يُولَدْ وَ لَمْ يَكُنْ لَهُ كُفُوا أَحَدٌ وَ أَسْأَلُكَ بِأَنَّكَ اللَّهُ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ اللَّطِيفُ الْخَبِيرُ الْقَائِمُ عَلَى كُلِّ نَفْسٍ بِمَا كَسَبَتْ الرَّقِيبُ الْحَفِيظُ وَ أَسْأَلُكَ بِأَنَّكَ اللَّهُ الْأَوَّلُ قَبْلَ كُلِّ شَيْ‏ءٍ وَ الْآخِرُ بَعْدَ كُلِّ شَيْ‏ءٍ وَ الْبَاطِنُ دُونَ كُلِّ شَيْ‏ءٍ الضَّارُّ النَّافِعُ الْحَكِيمُ الْعَلِيمُ وَ أَسْأَلُكَ بِأَنَّكَ أَنْتَ اللَّهُ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ الْحَيُّ الْقَيُّومُ الْبَاعِثُ الْوَارِثُ الْحَنَّانُ الْمَنَّانُ بَدِيعُ السَّمَاوَاتِ وَ الْأَرْضِ ذُو الْجَلالِ وَ الْإِكْرَامِ وَ ذُو الطَّوْلِ وَ ذُو الْعِزَّةِ وَ ذُو السُّلْطَانِ لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ أَحَطْتَ بِكُلِّ شَيْ‏ءٍ عِلْما وَ أَحْصَيْتَ كُلَّ شَيْ‏ءٍ عَدَدا صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ

অতঃপর মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া চাইতে হবে।

 

ইমাম মাহদি (আ.) এর বিশেষ নফল নামাজ

ইমাম মাহদি (আ.) থেকে বর্ণিত বিশেষ সফল নামাজটি হচ্ছে দুই রাকাত। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহা পাঠের সময় যখন “اياك نعبد و اياك نستعين” এ পৌছাবে তখন উক্ত আয়াতটি ১০০ বার পাঠ করতে হবে। অতঃপর সুরার বাকি অংশটুকু পাঠ করতে হবে এবং সুরা ইখলাস একবার পাঠ করতে হবে।

অতঃপর রুকুর যিকিরটি (سبحان ربى العظيم و بحمده) ৭ বার পাঠ করতে হবে। সিজদার যিকরটিও (سبحان ربى الاعلى و بحمده) ৭ বার পাঠ করতে হবে।

দ্বিতিয় রাকাটিও প্রথম রাকাতের ন্যায় পাঠ করতে হবে। নামাজান্তে একবার (لا اله الا الله) পাঠ করতে হবে। তারপরে হজরত ফাতেমা যাহরা (সা.আ.) এর তসবিহ পাঠ করতে হবে। অতঃপর সিজদাতে যেয়ে ১০০ বার বলতে হবে (اللهم صل على محمد و آل محمد)

 

মসজিদে জামকেরানের বিশেষ নামাজ

উক্ত নামাজটি তাহিয়াতুল মসজিদের নিয়ত করে পড়তে হবে।

প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে  ৭ বার সুরা ইখলাস পাঠ করতে হবে।

অতঃপর রুকুর যিকিরটি (سبحان ربى العظيم و بحمده) ৭ বার পাঠ করতে হবে এবং সিজদাতে যেয়ে সিজদার যিকর (سبحان ربى الاعلى و بحمده) ৭ বার পাঠ করতে হবে।  দ্বিতিয় রাকাটিও প্রথম রাকাতের ন্যায়  পাঠ করতে হবে।