“দাহুল আরদ” কি?

দাহুল আরদ” হচ্ছে জিলকদ মাসের ২৫ তারিখ। আল্লাহ পৃথিবিকে সৃষ্টির পরে এই দিনেই প্রথম মাটি পরিলক্ষিত হয় এবং তা ধিরে ধিরে বর্তমান বিশ্বের এক চতূর্থাংশে রূপলাভ করে। রেওয়ায়েতের বর্ণনামতে পৃথিবির প্রথম যে মাটির অংশটি পরিলক্ষিত হয় তা হচ্ছে বর্তমানে অবস্থিত পবিত্র

“দাহুল আরদ” কি?

এস, এ, এ

“দাহুল আরদ” হচ্ছে জিলকদ মাসের ২৫ তারিখ। আল্লাহ পৃথিবিকে সৃষ্টির পরে এই দিনেই প্রথম মাটি পরিলক্ষিত হয় এবং তা ধিরে ধিরে বর্তমান বিশ্বের এক চতূর্থাংশে রূপলাভ করে।

রেওয়ায়েতের বর্ণনামতে পৃথিবির প্রথম যে মাটির অংশটি পরিলক্ষিত হয় তা হচ্ছে বর্তমানে অবস্থিত পবিত্র কাবা শরিফের মাটি।

“دَحو”এর অর্থ হচ্ছে বিস্তৃত হওয়া। আর “دحوالارض”এর অর্থ পৃথিবির বিস্তৃতি লাভ করাকে বুঝায়।

কোরআনের দৃষ্টিতে দাহুল আরদ:

পবিত্র কোরআনে দাহুল আরদ সম্পর্কে বর্ণিত হয়েছে। মহান আল্লাহ তায়ালা তার পবিত্র কোরআন শরিফের সূরা নাযিয়াতে বলেছেন যে,

وَالْأَرْضَ بَعْدَ ذَلِكَ دَحَاهَا

অর্থ: পৃথিবীকে এর পরে বিস্তৃত করেছেন। (সূরা নাযিয়াত, আয়াত নং ৩০)

আর মুফাসসিরিনদের দৃষ্টিতে “دَحَاهَا” বলতে এই দাহুল আরদকে বুঝানো হয়েছে।

উক্ত দিনে পৃথিবিতে আরো কিছু বিশেষ ঘটনাকে ঘটে। যার কারণে দিনটির গুরুত্ব আরো বেশি বেড়ে যায়। আর উক্ত ঘটনাগুলো হচ্ছে নিন্মরূপ:

১- হজরত ইব্রাহিম (আ.) এ দিনে জন্মগ্রহণ করেন।

২- হজরত ঈসা (আ.) এ দিনে জন্মগ্রহণ করেন।

৩- বিদায় হজের জন্য রাসুল (সা.) এ দিনেই কাবা শরিফের উদ্দেশ্যে রওনা হন।

৪- রেওয়ায়েতে বর্ণিত হয়েছে যে ইমাম মাহদি (আ.) উক্ত দিনেই বিপ্লবি আন্দোলন শুরু করবেন।

উক্ত দিনে ইবাদত বন্দেগির অনেক সওয়াব বর্ণিত হয়েছে। উক্ত দিনের জন্য বিশেষ কিছু নামাজ ও দোয়া বর্ণিত হয়েছে।

সূত্র: সিয়ুতি, জামেউস সাগির, খন্ড ১, পৃষ্ঠা ৯৫।