ইমাম জয়নুল আবেদীন (আ.)'র বীরত্বপূর্ণ ভাষণ

কারবালার অসম যুদ্ধে অশেষ বীরত্ব ও বিক্রম দেখিয়ে এবং ইয়াজিদের বহু সেনাকে জাহান্নামে পাঠিয়ে শহীদ হয়েছিলেন হযরত ইমাম হুসাইন (আ.)সহ ইসলামের ইতিহাসে অমর হয়ে থাকা ৭২ জন মহামানব। তাদের কেউ ছিলেন ইমামের যুবক পুত্র, শিশু পুত্র, সত ভাই, ভাতিজা, ভাগিনা, চাচাতো

ইমাম জয়নুল আবেদীন (আ.)'র বীরত্বপূর্ণ ভাষণ
কারবালার অসম যুদ্ধে অশেষ বীরত্ব ও বিক্রম দেখিয়ে এবং ইয়াজিদের বহু সেনাকে জাহান্নামে পাঠিয়ে শহীদ হয়েছিলেন হযরত ইমাম হুসাইন (আ.)সহ ইসলামের ইতিহাসে অমর হয়ে থাকা ৭২ জন মহামানব। তাদের কেউ ছিলেন ইমামের যুবক পুত্র, শিশু পুত্র, সত ভাই, ভাতিজা, ভাগিনা, চাচাতো ভাই এবং অন্যরা ছিলেন প্রাণ-উতসর্গ করতে আসা নিবেদিত-প্রাণ সঙ্গী। কেবল ইমাম হুসাইন (আ.)’র পুত্র হযরত যইনুল আবেদীন (আ.) অসুস্থ ছিলেন বলে যুদ্ধে অবতীর্ণ হননি এবং শত্রুরাও তাকে মৃত-প্রায় অসুস্থ ভেবে হত্যা করেনি। এভাবে টিকে থাকে নবী বংশের একজন পুরুষ সদস্য।
১৩৭৩ বছর আগে অর্থাত ৬১ হিজরির এই দিনে (১২ মহররম) ইয়াজিদ সেনারা নবী পরিবার তথা ইমাম পরিবারের এবং ইমাম শিবিরের সকল নারী ও কন্যা শিশুকে বন্দী করে কুফায় নিয়ে যায়। এ সময় ইয়াজিদ সেনারা শহীদদের বিচ্ছিন্ন মাথা বর্শায় বিদ্ধ করে নিয়ে আসে তাদের সঙ্গে।
কুফায় বন্দীদেরকে ইয়াজিদের গভর্নর ইবনে জিয়াদের দরবারে আনা হলে জিয়াদ তাদেরকে উপহাসের চেষ্টা করে এবং ইমাম যইনুল আবেদীন (আ.)-কে হত্যা করতে চায়। কিন্তু ইমামের বোন হযরত যেইনাব (সা.)’র সাহসী বক্তব্য ও বিশেষ করে নবী পরিবারের সদস্যদেরকে ত্যাগের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার ও শাহাদতের মর্যাদা দেয়ার জন্য মহান আল্লাহর প্রতি তাঁর প্রশংসাসূচক কথাগুলো জিয়াদকে হতভম্ব বা লা-জওয়াব করে দেয়।
সূত্রঃ ইন্টারনেট