কৃত্রিম অগ্ন্যাশয় তৈরির ক্ষেত্রে বিজ্ঞানীদের উল্লেখযোগ্য সাফল্য

কৃত্রিম অগ্ন্যাশয় তৈরির ক্ষেত্রে বিজ্ঞানীদের উল্লেখযোগ্য সাফল্য

কৃত্রিম অগ্ন্যাশয় তৈরির ক্ষেত্রে বিজ্ঞানীদের উল্লেখযোগ্য সাফল্য

কৃত্রিম অগ্ন্যাশয় তৈরির ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছেন চিকিতসা বিজ্ঞানীরা। ডায়াবেটিস বা বহুমূত্রের রোগীর দেহের অগ্ন্যাশয় সঠিক ভাবে কাজ করে না। রক্তে শর্করা মাত্রা বাড়লেও তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ইনসুলিন নামের একটি হরমোন তৈরি করে না। বা এ জাতীয় হরমোন আদৌ তৈরি করে না। ফলে রক্ত শর্করার উপস্থিত অস্বাভাবিক মাত্রায় বেড়ে যায়।
কৃত্রিম যে অগ্ন্যাশয় তৈরি করা হয়েছে তা এ দায়িত্ব পালন করবে। অর্থাত অবিরাম রক্তে শর্করার মাত্রা পরীক্ষা করবে এবং প্রয়োজন মত ইনসুলিন রক্তে সরবরাহ করবে।
যন্ত্রটির মধ্যে ছোট্ট একটি পাম্প বসানো আছে যা প্রয়োজনের সময় রক্তে ইনসুলিন সরবরাহ করবে।
ঘুমিয়ে থাকার সময় রক্তে শর্করার মাত্রা বিপদজনক ভাবে নেমে যেতে পারে এ অবস্থায় যন্ত্রটি কি করবে? হ্যাঁ এ রকম পরিস্থিতি দেখা দিলে যন্ত্রটি স্বয়ংক্রিয় ভাবেই বন্ধ হয়ে যাবে। সে ব্যবস্থা এত নিশ্চিত করা হয়েছে।
টাইপ ওয়ান ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ২৪৭ জন রোগীর ওপর তিন মাস ধরে এ যন্ত্র দিয়ে পরীক্ষা চালানো হয়েছে। তাতে প্রয়োজনে যন্ত্রটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার বিষয়টি সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে।
এ যন্ত্রটি তৈরি করেছে মিননেয়াপোলিস ভিত্তিক একটি সংস্থা। ইউরোপের কোনো কোনো দেশে এ যন্ত্রের বিক্রি এরই মধ্যে শুরু হয়েছে। এ ছাড়া, আমেরিকার খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন এ যন্ত্র বিক্রির অনুমোদন দেয়ার বিষয়টি পর্যালোচনার করছে।
এ যন্ত্র সংক্রান্ত খবর নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে প্রকাশিত হয়েছে।
সূত্রঃ ইন্টারনেট