মহানবী (সা.)এর ওফাত এবং ইমাম হাসান (আ.)-এর শাহাদত 

ইসলামের ইতিহাসে এমন কিছু দিবস আছে, যেসব দিবস অবিস্মরণীয়, কোনোভাবেই যা বিস্মৃতব্য নয়। হিজরী বর্ষের ২৮ শে সফর তেমনি একটি দিন। এইদিন বিশ্বকে আলোকিত করার জন্যে আল্লাহ প্রেরিত সূর্য মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) এর পরকালীন অনন্ত জীবনে প্রবেশ করার দিন।

মহানবী (সা.)এর ওফাত এবং ইমাম হাসান (আ.)-এর শাহাদাত 

ইমাম হাসান, মুয়াবিয়া, ইসলাম, আল্লাহ, কিতাবচ, আমিরুল মুমিনিন, সিফফিন, ইয়াযিদ, ওমর, ক্রন্দন, ওযু, আল্লাহ, হযরত আলী, হযরত ফাতেমা, শাহাদাত

ইসলামের ইতিহাসে এমন কিছু দিবস আছে, যেসব দিবস অবিস্মরণীয়, কোনোভাবেই যা বিস্মৃতব্য নয়। হিজরী বর্ষের ২৮ শে সফর তেমনি একটি দিন। এইদিন বিশ্বকে আলোকিত করার জন্যে আল্লাহ প্রেরিত সূর্য মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) এর পরকালীন অনন্ত জীবনে প্রবেশ করার দিন। যদিও কোনো কোনো রেওয়ায়েতে আছে ১২ ই রবিউল আউয়াল তারিখে নবীজী পৃথিবীকে নিঃসঙ্গ করে দিয়ে তাঁরই প্রিয় স্রষ্টার সান্নিধ্যে চিরদিনের জন্যে চলে যান। মানব স্মৃতির দুর্বলতার কারণে তারিখ নিয়ে মতানৈক্য থাকতেই পারে কিন্তু সূর্যের কাছে অন্ধকার বলে যেমন কিছু নেই তেমনি নেই নবীজীর ওফাতের ব্যাপারে কোনো সংশয়। আমরা তাই মতপার্থক্যের উর্ধ্বে উঠে নবীজীর ওফাত নিয়ে আলোচনা প্রসঙ্গে তাঁরই জীবনদর্শন থেকে নিজেদের আলোকিত করার চেষ্টা করবো। আর মতানৈক্যের উর্ধ্বে উঠে যে বিষয়টি আমাদের বিবেচনা করতে হবে তা হলো, মহানবী (সা.) এই পৃথিবীতে আমাদের জন্যে যে বার্তা নিয়ে এসেছেন, যেই আদর্শ নিয়ে এসেছেন তিনি সমগ্র বিশ্ববাসীর জন্যে, সেই আদর্শ আমরা কতোটা অনুসরণ করছি, কতোটা বাস্তবায়ন করছি আমাদের জীবনে-তা একবার পর্যালোচনা করে দেখা উচিত। মনে রাখতে হবে রাসুলের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা প্রদর্শনের একমাত্র উপায় হলো তাঁর প্রদর্শিত পথে চলা। জীবন সমস্যার সমাধানে তাঁর নির্দেশনাকে কাজে লাগানো। তাঁর চারিত্র্যিক ও নৈতিক আদর্শে আমাদের জীবনকে রাঙিয়ে তোলাই হবে তাঁর প্রতি ভালোবাসা নিবেদনের অন্যতম উপায়।
সেইসাথে আরেকটি প্রসঙ্গ এখানে উল্লেখযোগ্য তাহলো, ২৮ সফর তারিখেই শাহাদাত বরণ করেছিলেন নবীজীর প্রিয় নাতি হযরত ইমাম হাসান (আ.)। ঠিক কোন পরিস্থিতিতে এবং কীভাবে তিনি শহীদ হন, তাঁর জীবনাদর্শ থেকে আমাদের জন্যে কী শিক্ষণীয় রয়েছে-সেসব বিষয়েও খানিকটা আলোচনা করার চেষ্টা করবো। আপনারা যথারীতি আমাদের সাথেই রয়েছেন-এ প্রত্যাশা রেখে এবং সবার প্রতি শোক ও সমবেদনা জানিয়ে শুরু করছি গুরুত্বপূর্ণ এই আলোচনা।
নবীজীরপৃথিবী থেকে চলে যাবার বিষয়টি অনেকের জন্যেই অসহনীয় কষ্টের ব্যাপার ছিল। কেননা নবীজী ছিলে আল্লাহর মনোনীত সর্বশ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব,সর্বোত্তম চরিত্র ও নৈতিকতার শ্রেষ্ঠতম উদাহরণ। তিনি খুব কম সময়ের মধ্যে মানুষের মাঝে ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করে এবং ন্যায়নীতিময় একটি সমাজ ব্যবস্থা কায়েম করে সর্বস্তরের মানুষের জন্যে যথার্থ কল্যাণ বয়ে আনেন। পৃথিবীর সকল মানুষ তাঁর প্রতিষ্ঠিত সেই কল্যাণ-আদর্শ থেকে উপকৃত হয়। হযরত আলী (আ.) এ সম্পর্কে বলেছেন,আল্লাহ রাব্বুল আলামীন হযরত মুহাম্মাদ (সা.) এর মাধ্যমে জনগণের জন্যে তাঁর সমূহ নিয়ামত বা কল্যাণ অবতীর্ণ করেছেন। দেখুন! জনগণ নবীজীর আনুগত্য করে আল্লাহর দ্বীনের সাথে কীভাবে নিজেদেরকে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে রেখেছে। তাঁরই দাওয়াতের ফলে জনগণ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। আল্লাহর অফুরন্ত নিয়ামত মানুষকে মর্যাদাবান করেছে। মানুষ প্রশান্তি আর কল্যাণের ঝর্ণাধারায় সিক্ত হয়েছে। সত্য দ্বীনের বরকতে মানুষ পুষ্ট হয়েছে। আল্লাহর নিয়ামতের মাঝে সিক্ত হয়ে মানুষ আনন্দিত জীবনযাপন করেছে। ইসলামী হুকুমাতের ছায়ায় মানুষের সামাজিক জীবনে এসেছে দৃঢ় সম্মান ও মর্যাদা। মানুষ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। যার ফলে ইসলাম একটি স্থায়ী হুকুমাতে পরিণত হয়েছে।'
রাসূলে খোদা (সা.) এর সম্মান ও মর্যাদা অনস্বীকার্য। কেবল তাঁর জীবদ্দশাতেই যে তিনি সম্মানিত ছিলেন তা নয়,বরং মৃত্যুর পরেও তিনি সমানভাবে মর্যাদা ও সম্মানের অধিকারী। অতএব যাঁরা তাঁর অনুসারী তাঁরা অবশ্যই সফলকাম। যেমনটি পবিত্র কোরআনের সূরা আরাফে বলা হয়েছে,
فالذين آمنوا به...اولئك هم المفلحون
"অতএব যারা তাঁকে বিশ্বাস করে,তাঁকে মান্য করে,তাঁকে সাহায্য করে এবং তাঁর সাথে অবতীর্ণ আলোর অনুসরণ করে তারাই সফলকাম।"
তাই আমাদের সবার উচিত হবে রাসূলে খোদার মনে কষ্ট লাগে এমন কোনো কাজ না করা। বিশ্বের বর্তমান পরিস্থিতিতে রাসূলে খোদা ( সাঃ) যে কারণে সবচেয়ে বেশি কষ্ট পাবেন,তা হলো মুসলমানদের মধ্যকার অনৈক্য ও মতপার্থক্য। কেননা; রাসূলে কারিম ( সা ) সবসময় চেয়েছেন মানুষের মাঝে পারস্পরিক নৈকট্য সৃষ্টি করতে এবং আন্তরিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে। এমন সম্পর্ক গড়ে তুলতে চেয়েছেন তিনি,যার মাঝে কোনোরকম ফাঁকফোকর না থাকে। কোরআনের ভাষায় যাকে বলা হয়েছে শিসা ঢালা প্রাচীরের মতো অঙ্গাঙ্গী সম্পর্ক। মানুষকে তিনি মূর্খতা আর গোত্রপ্রীতির অজ্ঞতা থেকে মুক্তি দিয়ে তাদেরকে ঐতিহ্যপ্রিয় এবং সংস্কৃতিমনা জাতিতে রূপান্তরিত করেছেন। মানুষের সকল কাজ যেন একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্যেই সম্পাদিত হয়,সে ব্যাপারে সমগ্র জাতিকে তিনি উদ্বুদ্ধ করেছেন। তাঁর সকল কাজই হয়েছিল পার্থিব জগতের কল্যাণ এবং পরকালীন মুক্তির লক্ষ্যে। যেই মানব মুক্তির জন্যে রাসূলের সকল কর্মতৎপরতা ছিল,সেই মহান ব্যক্তিত্বের ওফাতের পর আমাদের সবার উচিত তাঁর ওপর সালাম এবং দরূদ প্রেরণ করে নিজেদেরকে সমৃদ্ধ করে তোলা। কেননা সূরা আহযাবের ৫৬ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছেঃ
ان الله وملئكته... سلموا تسليما
নিঃসন্দেহে আল্লাহ ও তাঁর ফেরেশতাগণ নবীজীর ওপরে দরুদ প্রেরণ করেন। অতএব হে ঈমানদারগণ! তোমরাও তাঁর প্রতি দরূদ পাঠাও এবং সশ্রদ্ধচিত্তে সালাম জানাও।
পাঠক! নবীজীর প্রতি সালাম ও দরূদ পাঠাবার পাশাপাশি তাঁর আনীত ও বাস্তবায়িত বিধি-বিধান আমরা মেনে চলবো-এই হোক নবীজীর ওফাত দিবসে আমাদের সবার আন্তরিক অঙ্গীকার।
শুরুতেই আমরা বলেছিলাম যে, নবীজীর ওফাতের দিন ২৮ সফরে তাঁর প্রিয় নাতি হযরত হাসান (আ.)ও শাহাদাত বরণ করেন। হযরত হাসান ইবনে আলী (আ.) যে কতো সৌভাগ্যবান,নবীজীর ওফাত দিবসে তাঁর শাহাদাতই তার প্রমাণ। ইমাম হাসান (আ.) ৫০ হিজরীর ২৮ সফরে তথা ৬৭০ খ্রিষ্টাব্দে শাহাদাত বরণ করেছিলেন। তিনি ছিলেন হযরত আলী (আ.) এবং নবীকন্যা হযরত ফাতেমা (সা.) এর সন্তান।ফযীলত ও মর্যাদার উৎস যেই পরিবার,সেই নবী পরিবারে তিনি ৩ হিজরীতে জন্মগ্রহণ করেন। সেজন্যে তিনি নবীজীর অনন্য ব্যক্তিত্বের সুষমায় সমৃদ্ধ হবার সুযোগ পান। কিন্তু এই সুযোগ ৭ বছরের বেশি পান নি। এই ৭ বছরের মধুর সান্নিধ্যের স্মৃতিচারণ যখনই তিনি করেছেন,তখনই অত্যন্ত শ্রদ্ধা ও সম্মানের সাথে করেছেন এবং তিনি নানার সান্নিধ্যের স্মৃতি বিন্দুমাত্রও ভোলেন নি। নবীজীর ওফাতের পর এবং মায়ের শাহাদাতের পর ইমাম হাসান (আ.) এর জীবনে নতুন একটি পর্বের সূচনা হয়। এ সময় তিনি বাবার সাহচর্যে কাটান।বাবার সাথে থেকে তিনি মূল্যবান সব জীবনাভিজ্ঞতা অর্জন করেন।
আল্লামা জালালুদ্দিন সুয়ূতি ইমাম হাসান (আ.) এর চারিত্র্যিক সৌন্দর্যের বর্ণনা দিয়েছেন খুবই চমৎকারভাবে। তিনি তাঁর জীবনের প্রতিটা মুহূর্ত আল্লাহর রাস্তায় ব্যয় করেছেন। নৈতিকতা,ব্যক্তিত্ব,আমানতদারী, ক্ষমাশীলতা, দানশীলতা ইত্যাদি তাঁর চরিত্রের সৌন্দর্যকে আরো বেশি ফুটিয়ে তুলেছে। ইতিহাসে এসেছে, ইমাম হাসান (আ) বেশ কয়েকবার তাঁর সকল ধন-সম্পদ আল্লাহর রাস্তায় বিলিয়ে দিয়েছেন। তিনি কখনোই কোনো সাহায্য-প্রার্থীকে খালি হাতে ফেরান নি। তিনি বলতেন-আমি নিজেও আল্লাহর দরবারে সাহায্যপ্রার্থী। আল্লাহও যেন আমাকে না ফেরান। এই আশা পোষন করি বলেই কোনো সাহায্য প্রার্থীকে খালি হাতে ফেরত দিতে লজ্জা পাই।
হযরত আলী (আ.) এর শাহাদাতের পর ইমাম হাসান (আ.) ইমামতির দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। জনগণের বুঝতে খুব একটা সময় লাগে নি যে,ইমাম হাসান (আ)ও বাবার মতোই সামাজিক ন্যায় প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে বদ্ধপরিকর। এ বিষয়টি স্বার্থবাদী একটি মহলের কাছে ভালো ঠেকে নি। তারা ইমাম হাসানের অস্তিত্বকে তাদের স্বার্থসিদ্ধর পথে প্রধান এক অন্তরায় বলে ভাবলো। তারা তাই ইমাম হাসান (আ) এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন উপায়ে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হলো। ইমাম বলেছিলেন-তোমরা দ্বীনের স্বার্থের তুলনায় ব্যক্তিস্বার্থকে বেশি প্রাধান্য দিচ্ছো। কিন্তু কে শোনে কার কথা। প্রতিপক্ষ ঘোষণা করলো তোমাদের এবং আমাদের মাঝে তলোয়ার ছাড়া আর কিছু নেই। ইমাম দেখলেন যুদ্ধের চেয়ে শর্তসাপেক্ষ সমঝোতাই উত্তম। তাঁর এই সিদ্ধান্তে তাঁর অনুসারীদের অনেকেই ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন। কিন্তু ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় যে ইমামের সিদ্ধান্তই ছিল সঠিক।
যাই হোক, শত্র"পক্ষ ইমামকে এবং ইমামের অনুসারীদেরকে বহুভাবে হুমকি দিতে লাগলো। কিন্তু তাদের হুমকি কোনো কাজেই এলো না। ইমাম তাঁর দাওয়াতী কাজ চালিয়ে যেতে লাগলেন। হুমকি দিয়ে ইমামকে তাঁর দ্বীনী কার্যক্রম থেকে বিরত রাখতে না পেরে শত্র"রা শেষ পর্যন্ত ইমামকে মেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয়। অবশেষে ২৮শে সফর তারিখে শত্র"রা তাদের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করে ইমামকে শহীদ করে। ইমাম হাসান (আ) এর শাহাদাত বার্ষিকীতে শ্রোতাবন্ধুরা আপনাদের সবার প্রতি রইলো গভীর সমবেদনা। ইমামের মূল্যবান একটি বাণী দিয়ে শেষ করবো আজকের এই আলোচনা।
তিনি বলেছেন-তুমিযা জানো তা অন্যদেরকে শেখাও এবং অন্যদের জ্ঞানকেও তুমি আহরণ করো। তাহলে তোমার জ্ঞানের ভিত্তি যেমন মজবুত হবে তেমনি অনেক অজানা জ্ঞানও তুমি শিখতে পারবে।
তিনি অন্যত্র বলেছেন-তিনটি বস্তু মানুষকে ধ্বংস করে-অহমিকা,লোভ ও পরশ্রীকাতরতা।
রাসূল (সা.) বলেছিলেন, ‘যারা হাসান ও হুসাইনকে ভালবাসবে তারা আমাকেই ভালবাসলো,আর যারা এ দুজনের সাথে শত্রুতা করবে তারা আমাকেই তাদের শত্রু হিসেবে গণ্য করলো।' এই হাসান-হোসাইনকে রাসূল এতো বেশি আদর করতেন এইজন্যে যে, আল্লাহ রাব্বুল আলামীন এই দুইজনকে বেহেশতে যুবকদের নেতা বলে অভিহিত করেছেন। এছাড়া তাঁরা ছিলেন নিষ্পাপ চরিত্রের অধিকারী। আটাশে সফর তারিখে হযরত ইমাম হাসান (আ.) এরও শাহাদাত বার্ষিকী। তো রাসূলের হাদীস অনুযায়ী এই ইমামের প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা নিবেদন স্বয়ং নবীজীর প্রতি ভালোবাসা ও সম্মান প্রদর্শনেরই শামিল। তাই আমরা ইমাম হাসান মুজতবা (আ) এর শাহাদাত বার্ষিকীতে তাঁরি জীবনেতিহাস নিয়ে আলোচনা করার মধ্য দিয়ে ইতিহাসের এই দুই মহান ব্যক্তিত্বের প্রতি আমাদের আন্তরিক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা প্রদর্শন করার চেষ্টা করবো।
হে ইমাম ! বিষের পেয়ালায় চুমু দিয়ে আমাদের করেছো ঋণী
আমরা তোমারপদাঙ্ক দেখে দেখে এগিয়ে চলেছি
তোমারসাক্ষাতে, কোথায়তুমি ,
মরুঝড় এসেবুঝি মুছেদিলো তোমার পদচিহ্ন
এবার কী করেপাবো সত্যের নাগাল !
রাতেরআঁধারে দূরআকাশে জ্বলজ্বলে একটি তারা
পথ দেখালোশেষে , যারআলোয় জ্বলমান
বেহেশতেরযুবনেতারনাম - ইমাম হাসান !
ইমাম হাসান (আ.) ছিলেন রাসুলে কারীম (সা.) এর প্রিয় নাতি। হযরত আলী (আ.) এবং হযরত ফাতেমা (সা.) এর বড়ো সন্তান। রাসুলের সাহচর্য পাবার কারণে তাঁর মধ্যে নৈতিক যে মূল্যবোধগুলো গড়ে উঠেছিল তা ছিল অনেকটা রাসুলের চারিত্র্যিক বৈশিষ্ট্যের মতোই। সেজন্যেই আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের প্রতি তাঁর এক বিশেষ অনুরাগ ছিল। কখনো এই আসক্তির বহিপ্রকাশ ওযুর সময় অনেকে তাঁর চেহারায় অবলোকন করতেন। যখন তিনি ওযুতে মগ্ন হতেন তখন তাঁর চেহারা বিবর্ণ হয়ে যেতো, তিনি কম্পিত হতেন। তাঁকে জিজ্ঞেস করা হলো-আপনি এরকম হন কেন ? উত্তরে তিনি বলেন-যে আল্লাহর দরবারে উপস্থিত হয় তাঁর এরকম অবস্থাই যথোপযুক্ত। ষষ্ঠ ইমাম থেকে বর্ণিত যে, ইমাম হাসান (আঃ) তাঁর যমানার সর্বশ্রেষ্ঠ আবেদ বা ইবাদতকারী ও মর্যাদাবান ব্যক্তি ছিলেন। আর যখনি তিনি মৃত্যু ও পুনরুত্থানের কথা স্মরণ করতেন, তখনি ক্রন্দন করতেন এবং বেহাল হয়ে পড়তেন। তিনি পদব্রজে আবার কখনো নগ্নপদে পঁচিশ বার আল্লাহর ঘর যিয়ারত করেন।
সিফফিনের যুদ্ধের সময় মুয়াবিয়া ইমাম হাসানের (আ.) নিকট আবদুল্লাহ বিন ওমরকে এ কথা বলে পাঠায় যে "যদি আপনার পিতার অনুসরণ থেকে বিরত থাকেন তাহলে আমরা খেলাফত আপনার হাতে ছেড়ে দেবো। কেননা, কোরাইশের লোকজন আপনার পিতার প্রতি ভীষণ অসন্তুষ্ট, কারণ আপনার পিতা তাদের বাপ-দাদাদের হত্যা করেছে, তবে তারা আপনাকে গ্রহণ করতে কোন আপত্তি করবে না।"
ইমাম হাসান (আঃ) উত্তরে বলেছিলেন-‘কোরাইশরা ইসলামের পতাকা ভূলুণ্ঠিত করতে দৃঢ়চিত্ত ছিল। আমার বাবা আল্লাহর সন্তুষ্টি ও ইসলামের জন্যে তাদের মধ্যেকার অবাধ্য ও রগচটা ব্যক্তিদেরকে হত্যা ক'রে তাদের চক্রান্তকে ছিন্ন ভিন্ন করে দিয়েছিল। তাই তারা আমার পিতার সাথে শত্রুতার ঝাণ্ডা উত্তোলন করেছিল।'
ইমাম হাসান এই যুদ্ধে এক মূহুর্তের জন্যেও বাবার উপর থেকে তাঁর সমর্থন প্রত্যাহার করেন নি বরং শেষ পর্যন্ত তাঁর সাথে সমন্বয় ও সমচিত্তের পরিচয় দিয়েছেন।
মুয়াবিয়া যে ইমামের হাতে বাইয়্যাত গ্রহণ করে নি তাই নয় বরং ইমামকে উৎখাতের জন্যে সে সর্বশক্তি নিয়োগ করে। সে কিছু লোককে গোপনে নির্দেশ দিয়েছিলো ইমামকে হত্যা করার জন্যে। আর এ কারণেই ইমাম জামার নিচে বর্ম পরিধান করতেন এবং বর্ম ব্যতীত নামাযে অংশ গ্রহণ করতেন না। একদিন মুয়াবিয়ার গোপন প্রতিনিধি ইমামের দিকে তীর নিক্ষেপ করে। কিন্তু ঐ তীরে ইমামের কোন ক্ষতি হয় নি । মুয়াবিয়া কিন্তু তার দেওয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে নি। সে তার লম্পট সন্তান ইয়াযিদকে উত্তরাধিকার মনোনীত করে এবং তার পক্ষে জনগণের বাইয়াত গ্রহণ করে। নিজের দেওয়া ওয়াদা ভঙ্গ করেই ক্ষান্ত হয় নি মুয়াবিয়া বরং তিনি ইমাম হাসানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। যুদ্ধের এক পর্যায়ে মুয়াবিয়া ইমামকে সন্ধি করার আহ্বান জানায়। ইমাম পরিস্থিতি মূল্যায়ন করে সন্ধি করাকেই মিল্লাতের জন্যে অনুকূল বলে মনে করে। এই সন্ধিচুক্তিতে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ও কঠিন ধারা রাখা হয়েছিল।
যেমন :
১) আহলে বাইতের অনুসারীদের রক্ত সম্মানিত ও হেফাজত থাকবে এবং তাদের অধিকার পদদলিত করা যাবে না।
২) হযরত আলীকে গালি-গালাজ দেওয়া যাবেনা।
৩)মুয়াবিয়া রাস্ট্রের আয় থেকে এক মিলিয়ন দেরহাম সিফফিন ও জামালের যুদ্ধের ইয়াতিমদের মধ্যে বণ্টন করবে।
৪) ইমাম হাসান মুয়াবিয়াকে আমিরুল মুমিনিন বলে সম্বোধন করবে না।
৫) মুয়াবিয়াকে অবশ্যই আল্লাহ কিতাব এবং রাসুলের (সাঃ) সুন্নাত মোতাবেক আমল করতে হবে।
৬) মুয়াবিয়া, তার মৃত্যুর পরের জন্যে খেলাফতের ভার অন্য কারো উপর সোপর্দ করে যাবে না ইত্যাদি।
৭) মুয়াবিয়া উপরোক্ত শর্তগুলো এবং অন্যান্য আরো সব শর্তাবলী মেনে নিয়েছিল যার সবটাই ইসলাম ও বিশেষ করে আহলে বাইতের অনুসারীদের হেফাজতের জন্যে প্রয়োজন ছিল । ফলে যুদ্ধের  পরিসমাপ্তি ঘটে। কিন্তু মুয়াবিয়া এই সন্ধিচুক্তিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য প্রচারণা চালিয়েছিল-ইমাম হাসান (আ.) নাকি তাকেই বেশি উপযুক্ত মনে ক'রে খেলাফতের দায়িত্ব তার হাতে ছেড়ে দিয়েছে। এই মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে ইমাম হাসান প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছিলেন -‘মুয়াবিয়া মিথ্যাচার করছে, কোরআন এবং নবীর সুন্নাত মতে আমরা অর্থাৎ নবীর আহলে বাইত সকলের চেয়ে যোগ্যতর। তাছাড়া আমরা সন্ধিচুক্তির যে কয়েকটি ধারা পাঠকদের উদ্দেশে ব্যক্ত করেছিলাম। সেখানে স্পষ্টই বলা হয়েছিল যে, মুয়াবিয়াকে আমিরুল মুমিনিন বলা যাবে না।'
ইমামের এ ধরনের স্পষ্ট বক্তব্যে মুয়াবিয়া ভীষণ ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং পরবর্তী পর্যায়ে সরাসরি সন্ধিচুক্তি ভঙ্গ করে। তারপর থেকেই যে-কোনোভাবে ইমামকে হত্যা করার পাঁয়তারা করতে থাকে। শেষ পর্যন্ত মুয়াবিয়ার ষড়যন্ত্রে ইমামকে শহীদ করার জন্যে বিষ প্রয়োগ করা হয়।
ইমাম হাসান শাহাদাতের অমৃত পেয়ালা পান করে মুসলমান সমাজের জন্যে যে শিক্ষা রেখে গেছেন তাহলো মৃত্যুর মুখে দাঁড়িয়েও সত্যকে কোনোভাবে এড়িয়ে যাওয়া যাবে না। সত্য প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে শাহাদাতবরণ করা অনেক বেশি সম্মান ও মর্যাদার। আমরা যেন তাঁর প্রদর্শিত এই শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে নিজেদের জীবনকেও ধন্য করতে পারি-সেই দোয়া চেয়ে এখানেই গুটিয়ে নিচ্ছি রাসূলের ইন্তেকাল এবং ইমাম হাসানের শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আমাদের বিশেষ আলোচনা